বিশ্বে প্রতিদিনই বাড়ছে কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। প্রতি বছর কিডনির সমস্যার কারণে মৃত্যুর ঘটনাও কম নয়। কিডনি সংক্রান্ত রোগের চিকিৎসাও ব্যয়বহুল। তাই কিডনির যত্নে সচেতন হওয়া উচিত। আমাদের শরীর সুস্থ রাখার জন্য কাজ করে প্রত্যেক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ, এর কোনো একটিতে সমস্যা দেখা দিলে তা পুরো শরীরের জন্যই হুমকিস্বরূপ। আমাদের হৃৎপিণ্ড বা ফুসফুসের মতোই গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ হলো কিডনি। আমরা প্রতিদিন যেসব খাবার খাচ্ছি তার ভেতরে এমনকিছু খাবার আছে যা কিডনির জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। জেনে নিন সেই খাবারগুলো সম্পর্কে-

খুব বেশি মাংস খান?

প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে পাতে মাংস রাখাই যায়, তবে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি মাংস খাওয়া একেবারেই ঠিক নয়। কারণ মাংস হজম করা অনেকটা সময়সাপেক্ষ। তাই এটি কিডনির জন্য বাড়তি চাপের কারণ হতে পারে। আপনি যদি প্রতিদিনই অতিরিক্ত মাংস খেতে থাকেন তবে একটা সময় কিডনিতে পাথর জমতে থাকে। এটি ইউরিক অ্যাসিডের অন্যতম কারণ। তাই কিডনি ভালো রাখার খাতিরে মাংস খেতে হবে রয়ে-সয়ে। রেডমিট যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলবেন। প্রক্রিয়াজাত মাংস খাওয়া থেকেও বিরত থাকুন।

লবণ খান পরিমিত

আমাদের প্রতিদিনের খাবারে লবণের প্রয়োজনীয়তা অনেক। কিন্তু তা যেন কোনোভাবেই প্রয়োজনের চেয়ে বেশি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। কারণ অতিরিক্ত লবণ সরাসরি কিডনিতে প্রভাব ফেলে। লবণের অতিরিক্ত সোডিয়াম কিডনির বড় শত্রু হয়ে দাঁড়ায়। এ কারণে অনেকে কম সোডিয়ামযুক্ত লবণ খেয়ে থাকেন। বাড়িতে তৈরি খাবারে লবণের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলেও প্যাকেটজাত খাবারের ক্ষেত্রে তা সম্ভব নয়। তাই এ ধরনের খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। আমাদের শরীরে প্রতিদিন মাত্র এক চা চামচ লবণের চাহিদা থাকে।

কলাও কি ক্ষতিকর?

কলা একটি উপকারী ফল। এটি আমাদের শরীরে এনার্জি ও ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দূর করে। তবে কিডনিতে সমস্যা রয়েছে এমন কারও জন্য এই ফল খাওয়া মোটেও উপকারী নয়। এতে থাকা অতিরিক্ত পটাশিয়াম কমিয়ে দিতে পারে কিডনির কার্যকারিতা। কলায় যদিও সোডিয়াম কম থাকে তবে পটাশিয়ামের পরিমাণ থাকে অনেক বেশি। একটি মাঝারি মাপের কলায় থাকে ৪২২ গ্রাম পটাশিয়াম। এ কারণে কিডনির কোনো সমস্যা দেখা দিলে কলা থেকে দূরে থাকাই উত্তম।

কমলাও হতে পারে ক্ষতির কারণ

কমলা আমাদের শরীরের জন্য নানাভাবে উপকার করে। এটি ভিটামিন সি এর ভালো উৎস। তবে অতিরিক্ত ভিটামিন সি কিডনির জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। কমলায়ও কলার মতো প্রচুর পটাশিয়াম থাকে, যা জমা হয় কিডনিতে। যে কারণে কিডনির নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই কমলা খাওয়ার সময় এ বিষয়ও মাথায় রাখতে হবে।

এনার্জি ড্রিঙ্কস খেলে কী হয়?

দ্রুত শক্তি পেতে অনেকে এনার্জি ড্রিঙ্কস খেতে থাকেন। এই পানীয় কিডনির সর্বনাশ ডেকে আনতে পারে। তাই এনার্জি ড্রিঙ্কস বা কোল্ড ড্রিঙ্কস এড়িয়ে চলুন। এর বদলে পান করুন বিশুদ্ধ পানি। প্রতিদিন অন্তত আট গ্লাস পানি পান করুন। শরীরে ঘামের পরিমাণ বেশি হলে পানি পানের পরিমাণ বাড়াতে হবে।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/ ডেস্ক/ জিএসি-১৭


সূত্র : ঢাকা পোস্ট