বাড়ি ফিরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ৫৬০ দিন পর মাদ্রিদের ক্লাবটি ফিরেছে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। দেড় বছর পর বার্নাব্যুতে ফেরাটা রিয়াল উদ্‌যাপন করেছে দারুণ এক জয়ে। করিম বেনজেমার হ্যাটট্রিকে লা লিগার ম্যাচে দুই দুইবার পিছিয়ে পড়েও শেষ পর্যন্ত কার্লো আনচেলত্তির দল জিতেছে ৫–২ গোলে।

সান্তি মিনা ও ফ্রাঙ্কো সেরভির গোলে দুবার এগিয়ে যায় সেল্তা। দুবারই রিয়াল সমতায় ফেরে করিম বেনজেমার গোলে। রিয়ালের তৃতীয় গোলটি ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের, চতুর্থ গোলটি রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলা এদুয়ার্দো কামাভিঙ্গার। ফরাসি মিডফিল্ডার অভিষেকে বদলি হিসেবে মাঠে নেমে গোল করতে সময় নিয়েছেন মোটে ৬ মিনিট। ৮৭ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোলে হ্যাটট্রিক পুরো করেন বেনজেমা।

এই জয়ে চার ম্যাচে ১০ পয়েন্ট পেয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে রিয়াল। ভ্যালেন্সিয়া ও আতলেতিকো মাদ্রিদের পয়েন্টও ১০, তবে আপাতত গোল ব্যবধানে ভ্যালেন্সিয়া দুইয়ে ও আতলেতিকো আছে তিনে।

বার্নাব্যুতে প্রত্যাবর্তনের ম্যাচটা কী বাজেভাবেই না শুরু করেছিল রিয়াল। ম্যাচের বয়স চার মিনিট হতে না হতেই গোল খেয়ে বসে দলটি। তালগোল পাকিয়ে ফেলেছিলেন রিয়ালের দুই ডিফেন্ডার নাচো ও কাসেমিরো। তাঁদের ভুলের পুরো ফায়দা তুলে সেল্তাকে এগিয়ে দেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড মিনা।

গোল দিয়ে যেন ভুল করে বসল সেল্তা। পরের ২০ মিনিটে যে রিয়ালের আক্রমণ ঠেকিয়েই সময় কেটেছে দলটির। সেল্তার আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক মাতিয়াস এজেকিয়েল দিতুরো বাধার প্রাচীর না হলে রিয়ালকে প্রথম গোল পেতে ২৪ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতো না।

ফেদেরিকো ভেলভার্দের কাট ব্যাক থেকে ভলি করে গোল পেয়ে যান বেনজেমা। ৭ মিনিট পরেই আবার এগিয়ে যায় সেল্তা। সেল্তার খেলোয়াড় ইয়াগো আসপাস নিজেদের অর্ধে ফাউলের শিকার হলেও রেফারি খেলা বন্ধ করেননি। ‘অ্যাডভান্টেজ’টা কাজে লাগিয়ে সেল্তা এগিয়ে যায় সেরভির গোলে। প্রথম চেষ্টায় বলটি পোস্টে লেগে ফিরে এলে দ্বিতীয় চেষ্টায় গোল করেন এই আর্জেন্টাইন।

১–২ গোলে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধ শুরু করা রিয়াল প্রথম মিনিটেই আবার সমতায় ফেরে করিম বেনজেমার গোলে। মিগুয়েল গুতিয়েরেজে ক্রসে লাফিয়ে উঠে হেডে গোল করেন ফরাসি স্ট্রাইকার। লিগে চার ম্যাচে এটি ছিল বেনজেমার চতুর্থ গোল।

আট মিনিট পর ভিনিসিয়ুসের গোলে ম্যাচে প্রথমবার এগিয়ে যায় রিয়াল। এই গোলেও আছে বেনজেমার ছোঁয়া। তার পাস থেকেই যে গোলটি পেয়েছেন ভিনিসিয়ুস। গোলের পর উদ্‌যাপন করতে গ্যালারিতেই উঠে গিয়েছিলেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

রিয়াল কামাভিঙ্গাকে মাঠে নামায় হ্যাজার্ডের বদলি হিসেবে ৬৬ মিনিটে। ৭২ মিনিটেই গোল পেয়ে যান ১৮ বছর বয়সী মিডফিল্ডার। লুকা মদরিচের শট ফিরিয়ে দিয়েছিলেন দিতুরো। সেই বলে ট্যাপ করে গোল করতে ভুল করেননি কামাভিঙ্গা।

ভিনিসিয়ুসকে ফাউল করে রিয়ালকে পেনাল্টি উপহার দেয় সেল্তা ভিগো। সেই পেনাল্টি থেকে লিগে নিজের ও ম্যাচে দলের পঞ্চম গোলটি করতে ভুল করেননি বেনজেমা।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে


সূত্র : প্রথম আলো