সিলেটের গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দত্তরাইল গ্রামে ডাকাতির ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর উদ্যোগে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টায় দত্তরাইল স্থানীয় বিদ‍্যালয় অডিটোরিয়ামে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশিষ্ট মুরব্বি আব্দুস সহিদ খান জিলা মিয়ার সভাপতিত্বে ও ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামের পরিচালনায় দত্তরাইল স্থানীয় বিদ‍্যালয় অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান নোমান উদ্দিন মুরাদ, ঢাকাদক্ষিণ বাজার বণিক সমিতির সভাপতি বদরুল ইসলাম জামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ -দফতর সম্পাদক হোসেন আহমদ, ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ‍্যালয় ও কলেজের গভর্ণিং বডির সদস্য মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, রেদওয়ান হোসেন রাজু , স্থানীয় ইউপি সদস্য রেজাউল করিম রাজু, রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক শাহজাহান আহমদ, ভুক্তভোগী দুলাল সেন, সমাজসেবক এজাজ আহমদ, গোলাম মস্তফা খান, ঢাকাদক্ষিণ বাজার বণিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান, মনোজ কুমার দে সম্বু, সমাজসেবক স্বাফী খান। বক্তারা ডাকাতির সাথে জড়িতদের অনতীবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে বলেন, ঢাকাদক্ষিণ এলাকায় ডাকাতি এবং স্থানীয় জনসাধারণের উপর ডাকত দলের গুলি বর্ষণসহ হামলার ঘটনায় এলাকাবাসী চরমভাবে বিক্ষুব্ধ ও জননিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং পাশাপাশি স্থানীয় কেউর যদি এঘটনার সাথে সম্পৃক্ততা থাকে তাহলে তাকে খুজে বের করার জোর দাবি জানানো হয়।

বক্তারা ঘটনার সাথে জড়িত সব অপরাধীকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে এনে সঠিক তথ্য উদঘাটন করতে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানান। সভায় ডাকাতের হামলায় আহত সকলের চিকিৎসার সকল দায়িত্ব নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এলাকাবাসী । এসময় ডাকাতের গুলিতে আহত ছয়জনের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে এবং সবার সাথে সমন্বয় করে তাদের আর্থিক সহযোগিতা করতে স্থানীয় সমাজসেবক সামসুল আলম গোলাপ কে আহবায়ক করে সাত সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠণ করা হয়।

কমিটির সদস্যরা হলেন- নজরুল ইসলাম, আব্দুল আজাদ, বিদ‍্যুত দেব, আবুল কালাম খান, শ‍্যামল আহমদ, শরিফ আহমদ ।

উল্লেখ্য, শনিবার দিবাগত গভীর রাতে গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দত্তরাইল গ্রামের মিশ্রপাড়ায় জ্ঞান সেনের বাড়িতে একদল ডাকাত হানা দেয়। ডাকাতরা দরজা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে জ্ঞান সেন ও তার স্ত্রী শক্তি রাণী সেনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বেঁধে ফেলে। এসময় বাঁধা দিলে ডাকাতরা জ্ঞান সেনের ছেলে দুলাল সেনকে মারধর করে আহত করে। ডাকাতরা জ্ঞান সেনের ঘর থেকে নগদ দুই লক্ষ টাকা, ৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও মূল্যবান জিনিসপত্রসহ কয়েক লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতি শেষে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল ভোর রাতের দিকে পশ্চিম দত্তরাইল জামে মসজিদে আশ্রয় নেয়। মসজিদের ইমাম বিষয়টি স্থানীয় মহল্লাবাসীকে অবগত করলে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ডাকাত দলকে ঘিরে ফেলে । এসময় গ্রামের লোকজন ডাকাতদের ধাওয়া করলে তারা এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়লে ৬ গ্রামবাসী আহত হন। ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে গেলেও স্থানীয় লোকজন এক ডাকাতকে ধরে গণধোলাই দিলে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। ডাকাতির ঘটনার ভুক্তভোগী উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের মিশ্রপাড়া গ্রামের জ্ঞান সেনের ছেলে দুলাল সেন বাদি হয়ে ৪/৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় মামলা (নং-১৩/১২.০৯.২০২১) দায়ের করেন।

এছাড়া গণপিটুনিতে ডাকাত আরিফ নিহতের ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে ৩০০/৪০০জনকে অজ্ঞাত করে মামলা (নং-১৫/১৩.০৯.২০২১) দায়ের করেছে এবং আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে আরও একটি মামলা (১৪/১৩.০৯.২০২১) দায়ের করে। এব্যাপারে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ চৌধুরী বলেন, গ্রেফতারকৃত সুহেল ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা আদালতে স্বীকার করেছে। এঘটনায় জড়িত অন্যদের আইনের আওতায় আনতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনায় গত রবিবার সুহেল আহমদ (২২) নামে একজনকে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফারকৃত সুহেল আহমদ গোয়াইনঘাট উপজেলার ডৌবাড়ী ইউনিয়নের নগর ডেংরী গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে। দত্তরাইল গ্রামে জ্ঞান সেনের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন আটক সুহেল আহমদ। এ ঘটনায় করা মামলায় তাঁকে আসামি করার পর সোমবার সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট লায়লা মেহের বানু আদালতে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম / এনাম / ডালিম