উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বাসভবনে নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যদের গত জুন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হয়নি। সিলেট বিভাগের চারটিসহ ২৩টি উপজেলায় এমন ঘটনা ঘটেছে। এ অবস্থায় আনসার সদস্যদের বেতন কেন পরিশোধ করা হয়নি সেই ব্যাখ্যা চেয়ে ২৩ ইউএনওকে চিঠি দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। গত রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) এ চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

চিঠিতে কী কারণে আনসার সদস্যদের বেতনভাতা পরিশোধ হয়নি, তা পরীক্ষা করে সুনির্দিষ্ট বক্তব্যসহ ব্যাখ্যা দিতে ইউএনওদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা ও বিয়ানীবাজার এবং সুনামগঞ্জের ধরমপাশা ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় আনসার সদস্যদের জুন মাসের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হয়নি।

অন্যান্য উপজেলাগুলো হলো- কুলিয়ারচর, ভুঞাপুর, কক্সবাজার সদর, ফুলগাজী, নোয়াখালী সদর, কাউখালী, ক্ষেতলাল, পাঁচবিবি, নাটোর সদর, বাঘা, শৈলকুপা, নড়াইল সদর, আশাশুনী, হিজলা, দশমিনা, রাজারহাট, কালীগঞ্জ, মেলান্দাহ ও দুর্গাপুর।

জানা গেছে, গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের সরকারি বাসায় ঢুকে দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। এ ঘটনার জেরে ওই বছরের ৪ সেপ্টেম্বর দেশের সব ইউএনদের সার্বক্ষণিক শারীরিক ও বাসভবনের নিরাপত্তায় সশস্ত্র আনসার সদস্য মোতায়েনের জন্য আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালককে নির্দেশনা দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

নিয়োজিত আনসারদের বেতনভাতা পরিশোধ নিয়ে জটিলতা দেখা দিলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এক অফিস আদেশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে তা পরিশোধের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। তবুও সে নির্দেশনা অনুযায়ী বেতন না দেওয়ায় ২৩ জন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এ ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে