আফগানিস্তানে ১.২ বিলিয়ন ডলার সহায়তা ঘোষণা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ২০ বছরের যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে মানবিক ও অর্থনৈতিক বিপর্যয় এড়াতে ইইউ এই সহায়তা ঘোষণা করেছে।

ভারতের এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার ইতালির নেতৃত্বে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান উরসুলা ভন ডার লেন আফগানিস্তানে জরুরি মানবিক সহায়তা হিসেবে এই অর্থ ঘোষণা করেন। এক বিবৃতিতে ইইউ প্রধান বলেন, এই সহায়তা আফগানিস্তানের মানুষদের জন্য প্রত্যক্ষ সমর্থন। আন্তর্জাতিক সংস্থার মাধ্যমে সরাসরি এই সহায়তা প্রদান করা হবে, তালেবান সরকারের মাধ্যমে নয়।

ইইউ প্রধান উরসুলা ভন ডার লেন বলেন, আফগানিস্তানে বড় ধরনের মানবিক এবং সামাজিক-অর্থনৈতিক বিপর্যয় এড়াতে আমরা যেটা পারি সেটা অবশ্যই করতে হবে। তালেবানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার ব্যাপারে আমাদের শর্ত স্পষ্ট। তাদেরকে মানবাধিকারের প্রতি সম্মান জানাতে হবে। তবে তালেবানের কর্মকাণ্ডের জন্য আফগানিস্তানের সাধারণ মানুষের মাশুল দেওয়া উচিত হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে মঙ্গলবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বসা কথা রয়েছে তালেবানের। আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও তালেবান নেতা মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানান, কাতারের রাজধানী দোহায় ইইউ-র প্রতিনিধিদের সঙ্গে তারা বৈঠক করবেন।

তালেবানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আমির খান মুত্তাকি জানিয়েছেন, তারা বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলতে চান। ইতোমধ্যে কিছু বৈঠক হয়েছে। সবগুলোই ইতিবাচক বলে উল্লেখ করেন তিনি।

ইইউ-র মুখপাত্র নবিলা মাসরালি বলেন, আলোচনার মানে এটা নয় যে, ইইউ আফগানিস্তানকে কূটনৈতিক স্বীকৃতি দিচ্ছে। তিনি বলেন, নারীদের অধিকার নিয়ে কথা হবে, আফগানিস্তানকে সাহায্য দেওয়া নিয়েও কথা হবে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/জিএসি-২০


সূত্র : যুগান্তর