সংযত হও বিশ্বাসী
ড. মো. নিজাম উদ্দিন স্বপন

ওহে ক্ষণিকের পথিক!
অপরের বিশ্বাসকে করছ কেন অপমান?
তার চলার পথে বিছিয়ে কাঁটা-
পাও কতটা আনন্দ আর সম্মান?
কি পোড়াচ্ছ তুমি আজকাল?
ভাঙছো জড় কিছু মেটেরিয়াল,
পারো না স্বীয় ক্রোধকে পোড়াতে,  
মাড়াতে, পা এ পিষে যতটুকু উগ্রতা ,
মানবতা যদি ধর্মের মূল চাবি,
বিশ্বাস যেথা দেয় নিত্য প্রাণ,  
তবে কিসের এ কাঁদা ছোড়াছুড়ি?
কার খুশির তরে ছুঁড়ছ নগ্ন বাণ।
চুমিছো পবিত্র কোরআন, বেদ-
ত্রিপিটক, বাইবেল যাহা লও মনে-
মানবের চেয়ে বড় নেই কোন জীব,
সবই সৃষ্টিকর্তার অনুশাসন, মানবের তরে-
নাও না কেন মেনে?
পারলে বানাও নীল, কালো, সাদা রক্ত!
তোমার বিশ্বাসের রঙ মেখে,
জানি ক্ষমতা তোমার শূন্যতেই ম্রিয়মাণ!
আসলে অবয়বে এক সবে, এই ভবে,
কেউ যাবে কবরে, কেউ-বা চিতায়,
তাঁর তরে, শূন্য হাতে সবার বিদায়।
আল্লাহ বলি আমি, তুমি বল ভগবান,
কি ক্ষতি তাতে আমার-তোমার?
যেভাবে তুমি নিজেকে ভাব ভাগ্যবান।
কেউ নয় অস্পৃশ্য, কেউ নয় রাজাধিরাজ-
কর্ম ফলেই পাবে বেহেশত-দোজখ,
কারো ভাষায় স্বর্গ-নরক,
অহেতুক এ বিন্যাস, অনর্থক বড় ভাবের এ সাজ।
সংযত হও ওহে বিশ্বাসী, নিজেকে কর বড়,
সব বিশ্বাস, এক বাতাসেই নিঃশ্বাস,
ভুলে যাও জাত-কূল, সাদা-কালো,
ধনী -গরীব আর ধর্মের ব্যবধান-
এক আকাশেরই নীচে,
মা’ মৃত্তিকায় মিশে করি সহঅবস্থান।

*লেখক: অধ্যাপক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।