পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও পাঞ্জাবে বিএসএফের ক্ষমতা বাড়াতে নির্দেশনা জারি করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এর বিরুদ্ধে সোচ্চার অভিনেত্রী ও পরিচালক অপর্ণা সেন। প্রেস ক্লাবে এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

অপর্ণা অভিযোগ করে বলেন, মিলিটারিদের যতটা ক্ষমতা দেওয়ার কথা, তার থেকেও বেশি দেওয়া হচ্ছে। ছিটমহলের বাসিন্দাদের কথা ভাবলেই তিনি শিউরে ওঠেন বলে জানান। এমনিতেই তাদের অবস্থা খারাপ, তার উপরে বিএসএফের ক্ষমতা বাড়লে তা আরও দুর্বিষহ হবে বলে জানান অভিনেত্রী-পরিচালক। তিনি রাজ্য সরকারকে অনুরোধ করেন, সীমান্তে বাস করা মানুষগুলোর কথা যেন একটু ভাবা হয়। তারা যেন নিজেদের মতো করে ব্যবসা-বাণিজ্য, চাষাবাদ করতে পারেন।

গত অক্টোবরে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন নির্দেশনায় পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও পাঞ্জাবে বিএসএফের ক্ষমতা বাড়ানো হয়। বিএসএফ অফিসাররা এতদিন গ্রেফতার, বাজেয়াপ্ত এবং তল্লাশি করতে পারতেন। তবে সেটা ছিল আন্তর্জাতিক সীমান্ত থেকে ১৫ কিলোমিটারের ভেতরে। এবার তাদের অবস্থান থেকে ৫০ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে এ কাজ করতে পারবেন। এমনটাই জানানো হয় নির্দেশনায়।

ভারতের কেন্দ্রের এ সিদ্ধান্ত ঘিরে বেড়েছে শোরগোল। ইতোমধ্যে এ পদক্ষেপের প্রতিবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিবাদে মুখর হয়েছে তৃণমূল। কংগ্রেসশাসিত পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নিও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ নির্দেশনার তীব্র নিন্দা করেছেন। তার কথায়, ‘কেন্দ্র সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোয় আঘাত করেছে।’ একই সঙ্গে অমিত শাহকে এ নির্দেশনা প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। যদিও বিএসএফের দাবি, আন্তর্জাতিক সীমান্তে চোরাচালান-সহ একাধিক অপরাধ রুখতে অফিসারদের হাতে বিশেষ ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে


সূত্র : সংবাদ প্রতিদিনি (ভারত)