বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীনে কোনোও নির্বাচনে যাবে না, এটা বেশ আগে থেকেই জানিয়ে রেখেছে। বেশ কয়েকটি সংসদীয় আসনে উপনির্বাচনেও দলটি প্রার্থী দেয়নি। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও নেই বিএনপি। কিন্তু দল না থাকলেও সিলেটে বিএনপির তৃণমূল নেতারা ঠিকই আছেন নির্বাচনের মাঠে। স্বতন্ত্র থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে লড়ছেন তারা।

প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনে সিলেটের কোনো ইউনিয়ন ছিল না। দ্বিতীয় ধাপে সিলেট জেলার ১৫টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হয়। এ ধাপে দশটি ইউনিয়নে বিএনপির ১৫ জন নেতা-কর্মী চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছিলেন। তন্মধ্যে ১১ জন বিজয়ী হন।

তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর সিলেটের ১৬টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন হবে। এ ধাপেও স্বতন্ত্র থেকে প্রার্থী হয়েছেন বিএনপির অন্তত ৩২ জন নেতা-কর্মী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিলেটের দক্ষিণ সুরমার পাঁচটি ইউনিয়নে তৃতীয় ধাপে ভোটগ্রহণ হবে। তন্মধ্যে চারটি ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন বিএনপির ৭ নেতা-কর্মী। উপজেলার লালাবাজার ইউনিয়নে স্বতন্ত্র থেকে প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য আমিনুর রহমান চৌধুরী সিত্তা ও শহিদুর রহমান। মোংলাবাজার ইউনিয়নে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা যুবদলের সদস্য মঈনুল ইসলাম মঞ্জু ও উপজেলা শ্রমিকদলের সদস্য আব্দুল মুকিত প্রার্থী হয়েছেন।

জালালপুরে বিএনপি নেতা মামুনুর রহমান চৌধুরী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সিলাম ইউনিয়নে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা বিএনপির সদস্য আত্তর আলী ও ফাইজুল হক প্রার্থী হয়েছেন।

সিলেটের গোয়াইনঘাটে ছয়টি ইউনিয়নের পাঁচটিতে বিএনপিদলীয় প্রার্থী আছেন ১৫ জন। তন্মধ্যে নন্দীরগাঁও ইউনিয়নে স্থানীয় বিএনপি নেতা মামুনুর রশীদ শাহীন, আব্দুল ওয়াহিদ, জামাল উদ্দিন আহমদ ও তাজ উদ্দিন প্রার্থী হয়েছেন। রুস্তমপুর ইউনিয়নে বিএনপিদলীয় আবুল কালাম আজাদ, সাহাব উদ্দিন শিহাব, হাবিবুর রহমান হাবিব ও সালেহ আহমদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

লেঙ্গুড়া ইউনিয়নে বিএনপির মাহবুব আহমদ, গোলাম কিবরিয়া সাত্তার ও আব্দুল মান্নান লড়ছেন চেয়ারম্যান পদে। তোয়াকুল ইউনিয়নে বিএনপির খালেদুর রহমান খালেদ এবং ফতেহপুর ইউনিয়নে স্থানীয় বিএনপির মিনহাজ উদ্দিন, মীর হোসেন আমির ও সোহেল আহমদ প্রার্থী হয়েছেন।

এদিকে, সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হবে ২৮ নভেম্বর। এসব ইউনিয়নে বিএনপির ১০ নেতা-কর্মী স্বতন্ত্র থেকে প্রার্থী হয়েছেন।

তন্মধ্যে ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুল আহাদ ও উপজেলা বিএনপির সদস্য আলমগীর হোসেন জৈন্তাপুর ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন। চারিকাটা ইউপিতে স্থানীয় বিএনপি নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান শাহ আলাম চৌধুরী তোফায়েল, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক আলতাফ হোসেন বেলাল, বিএনপি নেতা ডি এম ডি আজাদ, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

দরবস্ত ইউনিয়নে সাবেক উপজেলা ছাত্রদল নেতা ও বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার, বিএনপি নেতা খায়রুল আমিন প্রার্থী হয়েছেন। ফতেপুর ইউপিতে ইউনিয়ন বিএনপি নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ এবং চিকনাগুল ইউপিতে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক এ.বি.এম জাকারিয়া নির্বাচনে লড়ছেন।

তবে এসব নেতাদের প্রার্থী হওয়ার পেছনে দলের কোনো সংযোগ নেই বলে দাবি করেছেন সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার। তিনি সিলেটভিউকে বলেন, ‘যারা প্রার্থী হয়েছেন, তারা নিজ উদ্যোগেই হয়েছেন। দল থেকে তাদেরকে প্রার্থী করা হয়নি।’

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে