সিলেট সীমান্তের ঠিক উত্তরে, ওপারে ভারতের মেঘালয় রাজ্য। সেই  মেঘালয়ের রাজনীতিতে সাড়া ফেলে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন দল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল। কংগ্রেসে আবারও ভাঙন ধরালো দলটি। বুধবার রাতে মেঘালয়ের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমাসহ ১২ জন বিধায়ক কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। এতে মেঘালয়ের প্রধান বিরোধী দলে পরিণত হলো তৃণমূল, যা কংগ্রেসের জন্য নিঃসন্দেহে বড় ধাক্কা।

এই মুহূর্তে মেঘালয়ে মোট ১৮ জন কংগ্রেস বিধায়ক রয়েছেন। এর মধ্যে ১২ জনই দল ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন। ইতিমধ্যে দলবদলের সিদ্ধান্ত সেই রাজ্যের স্পিকারকে জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় আরেক রাজ্য ত্রিপুরায় পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আর এর আগের রাতেই উত্তর-পূর্বের এই পাহাড়ি রাজ্যে সংগঠন খুলে ফেলল তৃণমূল। শুধু তাই-ই নয়, একইসঙ্গে পরিণত হয়েছে মেঘালয়ের প্রধান বিরোধী দলে। বৃহস্পতিবারই মেঘালয়ে তৃণমূলের নতুন পথচলা শুরু হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, মেঘালয়ে কংগ্রেসের অন্দরে ফাটল ক্রমশ চওড়া হচ্ছিল। বিশেষ করে সে রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমা এবং কংগ্রেসের প্রদেশ সভাপতি ভিনসেন্ট এইচ পালার সম্পর্ক বহুদিন ধরেই অম্লমধুর।

সাংমার অভিযোগ ছিল, পালাকে প্রদেশ সভাপতির পদে বসানোর আগে তার সঙ্গে কথা বলেনি দলীয় নেতৃত্ব। সেই ক্ষোভের সূত্রপাত। এরপর বিভিন্ন ইস্যুতে দুজনের মধ্যে দূরত্ব বেড়েছে। সম্প্রতি দুজনের সঙ্গে দেখা করেছিলেন কংগ্রেসের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড রাহুল গান্ধী। মনে করা হচ্ছিল, পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হয়েছে।

এদিকে এর মাঝেই কলকাতায় এসে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে দেখা করেছিলেন মুকুল সাংমা। তখনই দলবদলের জল্পনা দানা বাঁধছিল। এবার রাতারাতি দলের ১১ জন বিধায়ককে নিয়ে তৃণমূলে চলে এলেন তিনি। যা নিসন্দেহে কংগ্রেসের কাছে বড় ধাক্কা।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে