আলোচনা যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না তার। কোনো সময় সিনেমা, কোনো সময় প্রেম, কোনো সময় বিয়ে- একটা না একটা ইস্যু দিয়ে নেটিজেন ও বিনোদনপ্রেমীদের মাতিয়ে রাখছেন তিনি।

এবার যেন তেন বিষয় নয়, একেবারে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে ‘হট’ ফোনালাপ নিয়ে টক অব দ্যা কান্ট্রি-তে পরিণত হয়েছেন ঢাকাই ছবির নায়িকা মাহিয়া মাহি।


সিলেট ভিউ'র খবর নিয়মিত পেতে

দিয়ে যুক্ত থাকুন

চিত্রনায়ক মামনুন হাসান ইমন ও চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির সঙ্গে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের আলাপের একটি কল রেকর্ড সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সেখানে মাহিকে উদ্দেশ্য করে প্রতিমন্ত্রীকে আপত্তিকর ভাষায় কথা বলতে শোনা গেছে।

ভাইরাল হওয়া ফোনালাপটি সত্য বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন ইমন। তবে এটি দুই বছর আগের বলে জানান এই অভিনেতা।

ফোনালাপটি নিয়ে ইমন গণমাধ্যমের কাছে নিজের অবস্থান তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, ‘ফোনালাপটির অপর প্রান্তে ছিলেন প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। তবে ঘটনাটা দুই বছর আগের। আমাদের ‘ব্লাড’ সিনেমার মহরত অনুষ্ঠানের আগের রাতে তিনি ফোন দেন। একজন মন্ত্রী যখন কল দেন তখন সেটা এড়িয়ে যাওয়া যায় না। সবাই তো অডিও ক্লিপটি শুনেছেন। কোন অনুভূতি থেকে তিনি কথাগুলো বলছেন, সেটা বোঝা যায়। ’

ওই ফোনালাপে ডা. মুরাদ হাসানকে বলতে শোনা গেছে, চিত্রনায়ক ইমন ঘাড় ধরে যেন মাহিকে তার কাছে নিয়ে আসেন। এছাড়া অশ্লীল ভাষায় মাহিয়া মাহিকে দেখা করার জন্য বাধ্য করতে শোনা যায় তাকে।

এ প্রসঙ্গে ইমন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি কি কোনো নায়িকাকে নিয়ে এভাবে যাবো? এমন কোনো অভিযোগ কেউ আমার বিরুদ্ধে বলতে পারবেন? আমি যে তাকে (মাহি) নিয়ে গেছি, এমন কোনো কথা সেখানে নেই। আমি কিন্তু যাইনি। আমি শুধু সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছি। ’

বিষয়টি নিয়ে মাহির প্রতিক্রিয়া প্রসঙ্গে এই নায়ক বলেন, ‘মাহিকে যে এভাবে প্রতিমন্ত্রী গালিগালাজ করেছেন, আমি জানতাম না। মাহির হাতে ফোনটা দিয়ে আমি তখন পরিচালকের সঙ্গে স্ক্রিপ্ট নিয়ে কথা বলছিলাম। প্রতিমন্ত্রীর ফোনটি আমার নম্বরে এলেও আমার সেটে রেকর্ডিং অপশনই নেই। ’

এরপর বিষয়টি নিয়ে মাহির সঙ্গে ইমনের আর আলোচনা হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া ফোনালাপটির পর ইমন ও মাহি দু’জনই নিজ নিজ বাসায় চলে যান বলেও জানান এই অভিনেতা।

মাহিয়া মাহি সিলেটের পারভেজ মাহমুদ অপুকে ভালোবেসে ২০১৬ সালে বিয়ে করেন। চলতি বছরের ২২ মে পাঁচ বছরের বৈবাহিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেন এ অভিনেত্রী। এরপরই গাজীপুরের ব্যবসায়ী রাকিব সরকারের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানোর বিষয়টি আলোচনায় আসে।

সেই রাকিবই মাহিয়া মাহির বর্তমান স্বামী। ওই রাকিব প্রায় ১৪ বছর আগে প্রেম করে বিয়ে করেন গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা চৌরাস্তা এলাকার এক আইনজীবীর মেয়েকে। প্রথম সংসারে সোয়াইদ (১০) ও সাইয়েরা (৪) নামে এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। সেই সংসার থেকে বেরিয়ে মাহির সঙ্গে প্রেম ও বিয়ে।

এদিকে, প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের ফাঁস হওয়া অডিও আলাপ নিয়ে মুখ খুলেছেন অবশেষে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। আর ওই অডিওকলে যে পুরুষকণ্ঠ শোনা গেছে তা তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর বলেও দাবি করেছেন তিনি। মক্কায় ওমরাহ পালন করতে যাওয়া মাহি সোমবার (৬ ডিসেম্বর) এক ভিডিও বার্তায় নিজের অবস্থান সম্পর্কে জানান।

ভিডিও বার্তায় মাহি বলেন, আমার আসলে সেদিন আদৌ বলার কোনো ভাষা ছিল না। সেজন্য আমি প্রতিবাদ করিনি। আমি নিজের মতো আমার মনে হয়েছে, আমার পাশ কাটিয়ে যাওয়া উচিৎ। আমি চুপ থেকেছি, পাশ কাটিয়ে গিয়েছি। ঠিক দুই বছর আগের একটা ঘটনা ছিল এবং বরাবরে মতো আমি আল্লাহর কাছে বলি, আল্লাহ আমি কষ্ট পেয়েছি। যার মাধ্যমে আমি কষ্ট পেয়েছি, কোনো না কোনোভাবে তার রেজাল্টটা তিনি পেয়েছেন। এটা প্রমাণিত।

মাহি ভিডিও কলে দাবি করেন, প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের সঙ্গে দুই বছর আগে তার ফোনালাপটি হয়েছিল।

এই ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনা নিয়ে তিনি বলেন, অডিওটা নিয়ে সেদিনও ভীষণ বিব্রত ছিলাম। নিজের আত্মসম্মানবোধ কতটুকু আঘাত লেগেছে সেটা শুধু আমি জানি, আমার আল্লাহ জানে। আজকেও আমি ভীষণভাবে বিব্রত। আরও একবার নিজের কাছে নিজে তো ছোট হয়েছি। দেশবাসীর কাছে আরও একবার ছোট হলাম। আপনারা নিজের থেকে চিন্তা করে দেখবেন, এই ভাষার প্রত্যুত্তর আমার আসলে কী দেওয়া উচিৎ ছিল।

এদিকে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অসৌজন্যমূলক বক্তব্য দেওয়ায় আগামীকালের মধ্যে তাকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সোমবার (৬ ডিসেম্বর) রাতে তার বাসভবনে ডাক্তার মুরাদ হাসানের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান।


সিলেটভিউ২৪ডটকম / ডালিম