বগুড়ার শেরপুরে ফেসবুকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠার পর এক কলেজছাত্রীকে বাড়িতে ডেকে এনে ধর্ষণের ঘটনায় শেরপুর থানায় মামলা হয়েছে। বুধবার রাতে ধর্ষক আব্দুল্লাহ আল নোমানকে (২২) আটক করেছে থানা পুলিশ।

জানা যায়, উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নের এক কলেজছাত্রীর সঙ্গে শেরপুর পৌর শহরের স্যান্যালপাড়া এলাকার উলিপুর আমেরিয়া সমতুল্যা স্নাতকোত্তর মহিলা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আব্দুল হাই বারির ছেলে শেরপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আব্দুল্লাহ আল নোমানের গত ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে একটি অনুষ্ঠানে পরিচয় হয়। তারপর থেকে তাদের মধ্যে ফেসবুক ও মোবাইলে কথা হওয়ার মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।


সিলেট ভিউ'র খবর নিয়মিত পেতে

দিয়ে যুক্ত থাকুন

এরই একপর্যায়ে গত ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে অধ্যক্ষ আব্দুল হাই বারি অসুস্থ হলে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। এ সময় বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগে নোমান ওই কলেজছাত্রীকে বাড়িতে ডেকে এনে ধর্ষণ করে। এভাবে একাধিকবার বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে তাকে নিয়ে ধর্ষণ করে।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে কলেজছাত্রীর বাড়িতে কেউ না থাকায় নোমান সেখানে গিয়ে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে। পরে কলেজছাত্রী নোমানকে বিয়ের কথা বললে সে টালবাহানা শুরু করে। এমনকি ওই ছাত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

সঠিক বিচারের আশায় ১২ জানুয়ারি বুধবার রাতে ওই ছাত্রী নিজে বাদী হয়ে ধর্ষক আব্দুল্লাহ আল নোমানের বিরুদ্ধে শেরপুর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, কলেজছাত্রীর করা ধর্ষণ মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষক আব্দুল্লাহ আল নোমানকে আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম /ডেস্ক/জিএসি-১৪


সূত্র : যুগান্তর