মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার এবং লেখক-অনুবাদক মিহিরকান্তি চৌধুরী ভারতের শিলচরস্থ আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত তিনদিনব্যাপী ৪র্থ অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স রিসার্চ (এএমআর) কনফারেন্সে আমন্ত্রিত বক্তা হিসেবে অংশ নিয়েছেন। তাঁর বক্তৃতার বিষয় ছিল “অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স: পেশেন্টস পারস্পেক্টিভ”।

ভারতের আসাম বিশ্ববিদ্যালয়, ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিলচর মেডিকেল কলেজের ত্রিপাক্ষিক সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টায় এই কনফারেন্স গত ১৬ নভেম্বর থেকে ১৮ নভেম্বর অবধি অনুষ্ঠিত হয়।


ভারতের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণণ প্রতিষ্ঠান ও বিদেশ থেকে আগত বিজ্ঞানী, বায়োলজিস্ট, মাইক্রোবায়োলজিস্ট, বায়োটেকনোলজিস্ট, ডাক্তার, প্রফেসর, অন্য বিশেষজ্ঞ এবং এই ধারার অনেক তরুণ গবেষক এই কনফারেন্সে  অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স সমস্যা মোকাবেলার প্রয়াসে বিভিন্ন বক্তৃতা ও প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে মতবিনিময় করেন। কনফারেন্সের উদ্বোধন করেন আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর রাজীব মোহন পন্থ এবং উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন মেঘালয় রাজ্যস্থ ইউনিভার্সসিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির ভাইস চ্যান্সেলর ও ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশান অব ইউনিভার্সিটিজ এর প্রেসিডেন্ট প্রফেসর জি. ডি. শর্মা।

এই মেডিকেল কনফারেন্সে সায়েন্স ফ্রেটারনিটির বাইরে একমাত্র বক্তা হিসেবে মিহিরকান্তি চৌধুরী তাঁর বক্তৃতায় রোগীহৃদয় ও সমাজের কথা তুলে ধরেন।  সমাপনী দিনে ৭ম টেকনিক্যাল সেশনে ৪০ মিনিটের বক্তৃতায় তিনি রোগী সাধারণ ও তাঁদের নিকটজনের অভিজ্ঞতা, উপলব্ধি, এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ওষুধের সাথে সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জগুলো সম্বন্ধে বিস্তৃত আলোচনা করেন। তিনি রোগীদের শক্তি, দুর্বলতা, ধারণা, ভুল ধারণা, প্রবণতা এবং আচরণ বিশেষ করে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ওষুধের প্রসঙ্গ তুলে ধরে মাঠ পর্যায়ের চিকিৎসা ও অপচিকিৎসার এক বাস্তব চিত্র তুলে ধরেন এবং রোগী সমাজকে চিকিৎসা ব্যবস্থায় অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্টেকহোল্ডার হিসেবে বিবেচনা করার আহ্বান জানান। উপস্থিত সকল বিশেষজ্ঞ এর প্রতি সমর্থন জানিয়ে মিহিরকান্তি চৌধুরীর বাস্তবধর্মী বক্তৃতার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এদিকে, কনফারেন্সের সমাপনী অনুষ্ঠানেও মিহিরকান্তি চৌধুরী প্যানেল আলোচক হিসেবেও বক্তব্য রাখেন। প্রথম দিনের অনুষ্ঠান শেষে আয়োজক সংস্থার নির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকেও তিনি আমন্ত্রিত হন। সেই সভায় মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিকে ২০২৫ সালের অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স রিসার্চ এর ইন্টারন্যাশনাল সিম্পোজিয়ামের ভেন্যু হিসেবে নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

প্রসঙ্গত, টেগোর সেন্টার সিলেটের নির্বাহী প্রধান মিহিরকান্তি চৌধুরী ভারতের কলকাতায় অনুষ্ঠিত তিনদিনব্যাপী আন্তর্জাতিক ডেলফিক কালচার সামিটে গত মাসে যোগদান করেন। অক্টোবর মাসের ১২ থেকে ১৪ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় এই সামিট।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে