সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের বগিতে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিস্টরা। নাশকতার উদ্দেশ্যে অবরোধকারীরাই আগুন লাগাতে পারে বলেও সন্দেহ তাদের। ট্রেনে আগুন দেওয়ার জন্য সন্দেহের তীর বিএনপির দিকে ছুঁড়ে দিয়েছে আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী।


বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা উপবন এক্সপ্রেসে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা সেখানে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুন ট্রেনের কয়েকটি সিট পুড়ে যায়। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।



আগুনের খবর পেয়ে সিলেট রেলস্টেশনে যান রেলওয়ে পুলিশ সুপার শেখ শরিফুল ইসলাম।


তিনি বলেন, দেশব্যাপী বিরোধীদল অবরোধের ঘোষণা দিয়েছে। তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে টেনে আগুন দিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে তারা সিলেটেও ট্রেনে আগুন দিয়েছে বলে আমি মনে করি। যদিও এটি তদন্ত সাপেক্ষে নিশ্চিত হওয়া যাবে।


তিনি বলেন, ট্রেনের সিট পুড়ার ট্রেনের ধরণ দেখে মনে হচ্ছে এটি নাশকতাকারীদের কাজ। আগুণের ধারণ দেখে বুঝা যাচ্ছে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরানো হয়েছে। ফায়ার ব্রিগেডও এমন মতামত দিয়েছে।


এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, এটি নাশকতামূলক কাজ। যারা চাচ্ছে দেশটিকে অস্থিতিশীল করতে তারাই এটি করেছে।


এ ব্যাপারে সিলেট রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক মো. নুরুল ইসলাম বলেন ট্রেনের একটি বগিতে আগুন লাগে। আগুনে বগির ১৬-১৭টি সিট পুড়ে গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, দেশের পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করতে কেউ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটায়। তদন্ত স্বাপেক্ষে বিস্তারিত বলা যাবে।


উপবন ট্রেনে আগুন লাগার কিছুক্ষণ পরে আরেকটি ট্রেনে সিলেট আসেন পররাষ্ট্র প্রতমিন্ত্রী শাহারিয়ার আলম। তিনি বলেন, যারা এঘটনাটি ঘটিয়েছে তারা খুব খারাপ কাজ করেছে। আমি আশা করি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দ্রুতই তাদের চিহ্নিত করে কঠোর ব্যবস্থা নেবে। কারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা ও সরকারি সম্পত্তি রক্ষা করা আমাদের সবার দায়িত্ব। যারা নাশকতা করেছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক