মা-বাবা হারিয়েছেন বহু আগে। হারিয়েছেন স্বামী। এবার সুখ-দুঃখের সাথী নানাকেও হারালেন আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ২টা ১১ মিনিটে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছের অভিনেত্রী নানা শামসুল হক গাজী।

পরীমনির নানার মৃত্যুর বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন নায়িকার ‘মম’ হিসেবে পরিচিত নাটকও চলচ্চিত্র নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী। তিনি জানিয়েছেন, রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসা চলছিল শামসুল হক গাজীর। মারা গেছেন সেখানেই।


চয়নিকা আরও জানিয়েছেন, শুক্রবার ভোর চারটার দিকে গুলশানের আজাদ মসজিদে মরদেহকে গোসল করানো হয়। এরপর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরে। সেখানে ভাণ্ডারিয়ার ইকড়ি ইউনিয়নের শিংখালীতে পরীমনির নানির কবরের পাশে নানাকে দাফন করা হবে।

পরীমনির বয়স যখন মাত্র চার বছর, তখন আগুনে পুড়ে মারা যান তার মা সালমা সুলতানা। তারপর থেকে পিরোজপুরে নানা বাড়িতে বড় হতে থাকেন পরীমনি। এই নানাই তাকে কোলেপিঠে করে মানুষ করেছেন। পড়াশোনা করিয়েছেন।

এরপর চলচ্চিত্র জগতে পা রাখার কয়েক বছর আগে বাবা মনিরুল ইসলামকেও হারান পরীমনি। মা-বাবা হারানো নায়িকাকে সর্ব অবস্থায় আগলে রেখেছিলেন তার নানা শামসুল হক গাজী। সুখে-দুঃখে সবসময় ছিলেন পাশে পাশে। সেই নানাকে হারিয়ে মুষড়ে পড়েছেন পরীমনি।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/পিডি