পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের ২৬৬টি আসনের মধ্যে ১৭১টি আসনের ফলাফল ঘোষণা করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। সর্বশেষ ঘোষিত ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, অন্যদের চেয়ে এগিয়ে আছে ইমরান খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
 

পাক সংবাদমাধ্যম এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, ১৭১টি আসনের মধ্যে পিটিআইয়ের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ৭৪টি আসন। নওয়াজ শরীফের মুসলিম লীগ-এন পেয়েছে ৫০টি আসন। বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপি পেয়েছে ৪০টি আসন। এমকিউএম-পি পেয়েছে পাঁচটি আসন। জেইউআই-এফ পেয়েছে একটি আসন। আর অন্যান্য দলগুলো পেয়েছে একটি আসন।
 


গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কারাগারে বন্দি থাকায় এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি ইমরান খান। এছাড়া তার দলকে নির্বাচনী প্রতীক ‘ব্যাট’ ব্যবহারের সুযোগ দেওয়া হয়নি। ফলে ইমরানের দলের লোকেরা স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন। স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করেও তারা বাজিমাত করেছে।
 

পাকিস্তানে গতকাল জাতীয় পরিষদের ২৬৬টি আসনে ভোটাভুটি হয়েছে। জাতীয় পরিষদে মোট আসন হলো ৩৩৬টি। ২৬৬টিতে ভোট হলেও বাকি আসনগুলো নারী ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের জন্য সংরক্ষিত।
 

কোনো দল যদি এককভাবে সরকার গঠন করতে চায়— তাহলে সংরক্ষিত সহ মোট ১৭২টি আসন পেতে হবে। সে হিসেবে যদি পিটিআই এককভাবে সরকার গঠন করতে চায় তাহলে তাদের নির্বাচন হওয়া আসনগুলো থেকে অন্তত ১৫০টি আসনে জয় পেতে হবে।
 

পিটিআই গতকাল সন্ধ্যায় জানিয়েছিল, তারা ১৫০টি আসনে এগিয়ে আছে। তবে প্রাপ্ত ফলাফল থেকে জানা যাচ্ছে, মুসলিম লীগ-এনের সঙ্গে তাদের প্রার্থীদের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হচ্ছে।
 

গতকাল প্রাথমিক ফলাফল পাওয়ার পর পিটিআই জানায়, এবার তারা এককভাবে সরকার গঠন করবে। সরকার গঠনে অন্য কোনো দলের সঙ্গে তাদের জোট গঠন করতে হবে না। তবে পিছিয়ে থাকা নওয়াজ শরীফের দল জানিয়েছে, তারা স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে এবং তারাই সরকার গঠন করবে।
 

যদিও এখন পর্যন্ত কোনো দল এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ফলে শেষ পর্যন্ত দেশটিতে জোট সরকার গঠিত হতে পারে।


 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/এসডি-৮২২


সূত্র : ঢাকাপোষ্ট