টানা ভারী বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় তলিয়ে গেছে প্রায় ২৬৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকার ১৫৮টি গ্রাম।
 

সোমবার (১৭ জুন) সন্ধ্যা ৬ টায় গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী আকস্মিক বন্যায় গোয়াইনঘাট উপজেলার ১৩ টি  ইউনিয়নের ৩১৩টি গ্রামের মধ্যে ১৫৮টি গ্রামের মানুষ পানিবন্ধি রয়েছেন। বর্তমানে গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রায় ২৬৮ বর্গ কিঃমিঃ এলাকা গ্রাম প্লাবিত।  প্রায় ৭০০ হেক্টর কৃষি জমি বন্যার পানিতে  নিমজ্জিত রয়েছে।
 


সন্ধ্যা ৬ টায় গোয়াইন নদী (গোয়াইনঘাট পয়েন্ট) বিপদসীমাঃ ১০.৮২ মিটার, প্রবাহমানঃ ১০.৬৪ মিটার। পিয়াইন নদী (জাফলং পয়েন্ট) বিপদসীমা ১৩.০০ মিটার, প্রবাহমানঃ ১১.০৯ মিটার। সারি নদী (সারিঘাট পয়েন্ট), বিপদসীমাঃ ১২.৩৫ মিটার এবং প্রবাহমানঃ ১২.১৮ মিটার। গোয়াইনঘাটে ১৩ হাজার ৬০০ টি পরিবার পানিবন্দি রয়েছেন। এছাড়া ৬৯ হাজার ৩০০ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। গোয়াইনঘাটে ৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২৫২জন মানুষ ও ৭৫টি গবাদি পশু রয়েছে।
 

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তৌহিদুল ইসলাম বলেন, মেঘদূত এপস-আইএমডি)র তথ্য অনুযায়ী সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের ‘ওয়েষ্ট জৈন্তা হিলস’ ও ‘ইষ্ট খাসি হিলস’ জেলায় আগামী ১৯ জুন ৬৩২মিঃমিঃ ও ২০ জুন ৬২০মিঃমিঃ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি গোয়াইনঘাট উপজেলাবাসীকে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য অনুরোধ জানান।
 

এদিকে বিকাল ৪ টা থেকে  ঈদুল আযহাকালীন সময়ে অতিবৃষ্টিতে গোয়াইনঘাট উপজেলায় উদ্ভূত বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: তৌহিদুল ইসলাম।

ঈদুল আযহার মধ্যে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগির করার উদ্যোগ হিসেবে গোয়াইনঘাট সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম রব্বানী সুমনের উদ্যোগে গোয়াইনঘাট সদর ইউনিয়নের শিমুলতলা ও লাবু আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের মধ্যে ১০০ টি পরিবারকে কোরবানির গোস্ত বিতরণ করা হয়।
 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সাঈদুল ইসলাম,  গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম পিপিএম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শীর্ষেন্দু পুরকায়স্থ, গোয়াইনঘাট সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম রাব্বানী সুমন।

এছাড়া আশ্রয়ণ কেন্দ্রে ৬৭ টি পরিবারের ২৫২ জন আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছেন। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে আশ্রয় কেন্দ্রে রান্না করা খাবার ও সেমাই পরিবেশন করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমদ এমপি বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সবাইকে সতর্ক থাকার আহবান জানান। পাশাপাশি গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রতিটি আশ্রয়কেন্দ্র সংশ্লিষ্টদের সজাগ দৃষ্টি রেখে নিজ নিজ দায়িত্বে আশ্রয়কেন্দ্রে বন্যার্তদের উদ্ধারের মনমানসিকতা নিয়ে প্রস্তুত থাকার অনুরোধ করেন।
 

তিনি বলেন যত বড় বন্যা হোকনা কেন ভয় পাওয়ার কিছু নেই শেখ হাসিনা সরকার আপনাদের পাশে থাকবে ইনশাআল্লাহ।


 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/মতিন/এসডি-৫৩৪৩