ছবি : আহমেদ শাহিন

গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার কুরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম কিছুটা বেশি। এতে কিছুটা হলেও খুশি চামড়া ব্যবসায়ী এবং ক্বওমি মাদরাসা ও এতিখানা কর্তৃপক্ষ।

 



সারা দেশের ন্যায় সিলেটেও চামড়া ব্যবসায়ী এবং ক্বওমি মাদরাসা ও এতিখানাগুলোর কাঁচা চামড়া সংগ্রহের প্রধান মৌসুম ঈদুল আযহা। এক দশক আগেও একটি গরুর চামড়া আকারভেদে ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকায় বিক্রি করা যেত। কিন্তু গত কয়েক বছর সেই একই চামড়া ৩৫০ টাকাতেও বিক্রি করতে পারেননি। তবে এবার কিছুটা দাম মিলছে চামড়ার। 

 


সিলেটের কয়েকজন চামড়া ব্যবসায়ী ও মাদরাসা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবার আকার ও মানভেদে ৩০০ থেকে ৬০০ টাকা পর্যন্ত গরুর চামড়া সংগ্রহ করছেন বড় ব্যবসায়ীরা। আর ছাগলের চামড়া ২০ থেকে ২৫ টাকায় সংগ্রহ করছেন। প্রক্রিয়াজাত করে তারা ঢাকার ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করবেন। সেসময় আকার ও মানভেদে একেকটি চামড়ার দাম পড়বে ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা।

 

 

সোমবার দুপুর থেকে শুরু হয়েছে চামড়া বেচা-কেনা। চলবে মধ্যরাত পর্যন্ত।

 

 


বিভিন্ন মাদরাসা কর্তৃপক্ষ বলছে- গত বছর কোনো চামড়া ১৫০ টাকায়ও বিক্রি করতে হয়েছে। তবে এবার ২০০-২৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে চামড়ার দাম। এবার বেশ কিছুটা লাভ হবে মাদরাসা ও এতিমখানাগুলোর।

 

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার ভার্থখলা এলাকার ট্যানারি প্রতিষ্ঠান শেখ আব্দুল হামিদ ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মো. আব্দুল হামিদ সিলেটভিউ-কে বলেন- আমরা বিভিন্ন খুচরো ক্রেতা ও মাদরাসা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে চামড়া সংগ্রহ করছি। এবারে দাম কিছুটা ভালো। আমরা বড় ব্যবসায়ীরাও আশা করছি ঢাকার ক্রেতাদের কাছ থেকে ভালো দাম পাবো। কারণ- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন চামড়া নিয়ে কোনো কারসাজি কাউকে করতে দেবনন না। 

 

তিনি বলেন- আমরা ৩০০ থেকে ৬০০ টাকায় একেকটি গরুর চামড়া সংগ্রহ করছি। প্রক্রিয়াজাত শেষে ৮০০ থেকে ১০০০ টাকায় সেগুলো বিক্রি করবো।  

 

 

সিলেটভিউ২৪ডটকম / ডি.আর