ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে শিরোপার মিশনে কাল অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামে ফ্রান্স। এদিন ফরাসিরা ১-০ গোলের জয় পেলেও তাদের বড় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ম্যাচে কিলিয়ান এমবাপের নাক ভেঙে মাঠ ছেড়ে যাওয়াটা।  আর তাতে সংশয়ে জেগেছে এ বারের ইউরোয় আর কোনও ম্যাচ তিনি খেলতে পারবেন কি না।

কাল ৮৫ মিনিটের মাথায় অস্ট্রিয়ার ডিফেন্ডার ডানসোর সঙ্গে সংঘর্ষে নাক ফাটে এমবাপের। রক্তে ভিজে যায় তার মুখ এবং জার্সি। খেলা বন্ধ থাকে কিছুক্ষণ। এমবাপেকে তুলে নিতে চেয়েছিলেন কোচ দিদিয়ে দেশম। কিন্তু রক্তপাত পুরোপুরি বন্ধ হওয়ার আগেই এমবাপে মাঠে ফিরে আসেন এবং নাক ধরে বসে পড়েন। যার কারনে রেফারি তাকে হলুদ কার্ডও দেখান। শেষ পর্যন্ত অ্যাম্বুল্যান্সে করে স্টেডিয়াম ছাড়েন এমবাপে।


ডুসেলডর্ফের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখান থেকে ছাড়া পাওয়ার পর বিবৃতিতে ফ্রান্স ফুটবল ফেডারেশন জানায়, আপাতত স্কোয়াড ছেড়ে ফ্রান্স দলের ক্যাম্পে চিকিৎসা নেবেন গত বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার। এটাও বলা হয়, এমবাপের জন্য কাস্টম মাস্ক তৈরি করা হবে যা পরে তিনি টুর্নামেন্টের বাকি অংশে খেলবেন।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছিল, এমবাপের অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হবে এবং তার এই ইউরোতে মিস করার আশঙ্কাও রয়েছে। তবে ফ্রান্স ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি ফিলিপ দিয়ালো ইএসপিএনে জুলিয়েন লরেন্সকে নিশ্চিত করেছেন, ফ্রান্সের মেডিকেল টিম সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে এমবাপে অপারেশন ছাড়াই ঠিক হয়ে যাবেন।

তবে তিনি বা ফ্রান্স কোচ দিদিয়ের দেশম কেউই নিশ্চিত করেননি যে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে এমবাপে খেলবেন কিনা। ম্যাচটি হবে আগামী শুক্রবার। ফলে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে শুক্রবারের খেলার জন্য সন্দেহজনক বলে বিবেচিত হচ্ছে।


 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/এসডি-৫৩৫৪