সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বলেছেন, “এই সরকারের অবহেলা আর অদক্ষতার করনে সিলেটে বার বার বন্যা হচ্ছে। সুরমা-কুশিয়ারা নদীসহ সিলেটের সকল নদনদী খনন করার জন্য বার বার তাগিদ দিলেও সরকার এতে কর্নপাত করছে না। উল্টো এক ব্যক্তির বিলাসিতার জন্য হাওরজুড়ে রাস্তা নির্মান করে দেশের উত্তরপূর্বাঞ্চলের মানুষকে বার বার পানিবন্দি করে রাখছে। অতচ উন্নয়নের নামে আওয়ামী লীগ সরকারের পানিনেতা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ মহল পর্যন্ত, এমনকি তাদের দুর্ণীতির সহযোগী আমলারাও লাগামহীন লুটপাট করে দেশের টাকায় বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়েছে। এই লুটপাটের টাকা দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হলে দেশের সংকট কেটে যাবে।”
 

সোমবার দিনভর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার তেলীখাল ও ঈসাকলস ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় সিলেট জেলা বিএনপির উদ্যোগে ও জেলা বিএনপির উপদেষ্ঠা হেলাল উদ্দিনের সহযোগীতায় ৫৮০ জন বন্যার্ত মানুষের মাঝে খাদ্য ও নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ শেষে এক সভায় প্রধান অতিথির উদ্যোগে তিনি এসব কথা বলেন।
 


তিনি আরো বলেন, “আজকে দেখলাম ডামি সরকারের এক কতিত ডামি মন্ত্রী বন্যার্তদের সহযোগীতার অযুহাতে রাজকীয় ভ্রমনে সিলেটে এসে বিএনপিকে দোষারোপ করছেন। বাস্তবতা হচ্ছে ১/১১ এর পরে আওয়ামীলীগ ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করার পর থেকে নির্লজ্জ দুর্ণীতির মাধ্যমে দেশকে দেউলিয়ার পদে নিয়ে গেছে। তাদেরকে ক্ষমতার মসনদ থেকে বিতাড়িত করতে না পারলে দেশ অস্থিত্ব সংকটে পড়বে।”

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আলী আকবরের সঞ্চালনায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এমরান আহমদ চৌধুরী।
 

প্রধান বক্তার বক্তব্যে সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এমরান আহমদ চৌধুরী বলেন, “আওয়ামীলীগ সর্বক্ষেত্রে রাষ্ট্র পচিলনায় ব্যর্থ হয়ে শুধু মাত্র বিএনপিকে দোষারোপ করে। অতচ তারা সর্বক্ষেত্রে নির্লজ্জভাবে দলীয়করণ করে দুর্ণীতির মাধ্যমে দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করেছে। তাদের দলের ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ের নেতারা যে সম্পদের পাহাড় গড়েছে তা দেখলেই বুঝা যায় আরো উপরে কি হচ্ছে। দেশে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা হলে পাচার হওয়া সকল অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনা হবে।”

এসময় বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপি নেতা এডভোকেট হাসান আহমদ পাটোয়ারী রিপন, কোহিনুর আহমদ, মাহবুব আলম, শওকত আলী বাবুল, ফরহাদ খন্দকার, নূরুল মোত্তাকিম বাদশা, ছাত্রদল নেতা আবদুল সালাম টিপু, রুবেল আহমদ, আব্দুল মোমিন লস্কর, আবুল আহমদ, রাহেল আহমদ, রাসেল শাহরিয়ার, রাজু আহমদ, সোলেমান সিদ্দিকি প্রমূখ।


 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/প্রেবি/এসডি-৫৫০৯