প্রকাশিত: ২৩ এপ্রিল, ২০২৩ ১৫:১২ (সোমবার)
বজ্রপাতে ৫ জনের মৃত্যু

ফাইল ছবি

বজ্রপাতে সিলেট ও সুনামগঞ্জে ৫ জনের মুত্যুর খবর পাওয়া গেছে। নিহত ৫ জনের মধ্যে সিলেট জেলার একজন ও চার জন সুনামগঞ্জের রয়েছেন। বোরবার (২৩ এপ্রিল) সকালে বজ্রপাতে এ মৃত্যুর ঘটনাগুলো ঘটে।


আমাদের বালাগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বালাগঞ্জ উপজেলার দেওয়ান বাজার মোহাম্মদপুর এলাকার বজ্রপাতে এক কৃষকের মুত্যু হয়েছে। নিহত বালাগঞ্জ উপজেলার দেওয়ান বাজার মোহাম্মদপুর এলাকার মৃত দুদু মিয়ার ছেলে আনছার আলী (৭০)। 


স্থানীয়রা জানান, সকালে জমিতে ধান কাটতে যান আনছার আলী। এ সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয়রা তার মরদেহ উদ্ধার করে। 


বজ্রপাতে কৃষকের মুত্যুর ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল আলম সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


এদিকে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার ইউনিয়নে বজ্রপাতে ৩ জন মারা গেছেন। রোববার (২৩ এপ্রিল) সকালে ছাতক উপজেলায় বজ্রপাতে ৩ জন নিহত হয়েছে বলে ছাতক থানার সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল রনজয় চন্দ্র মল্লিক সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


নিহতরা হলেন, সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার ইউনিয়নের দেবেরগাঁও গ্রামের হোসাম মিয়ার ছেলে মহিম মিয়া (১৩) নামের এক যুবক ও বড়কাপন গ্রামের আরশ আলী (৬০) এক বৃদ্ধ এবং চরমহল্লা ইউনিয়নের চরদুর্লভ গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে আব্দুস সামাদ (৪৫)।  


স্থানীয় কৈতক হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন।


অপর দিকে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর থেকে আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ধান কাটতে গিয়ে হঠাৎ বজ্রপাতে এক কিশোরের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে এবং সঙ্গে থাকা এক যুবক মারাত্মক আহত হয়েছেন। নিহত কিশোর উপজেলার দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের কুকুর কান্দি গ্রামের হাসেম আলীর ছেলে রমজান আলী (১৬)। আহত যুবক একই গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে মুকিত মিয়া (২৫)। নিহত কিশোর আহত যুবকের সম্পর্কে চাচাতো ভাই। বোরবার সকাল প্রায় ১১ টার দিকে এই মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটেছে। 


জানা যায়, রোববার সকালে উপজেলার কুকুর কান্দি গ্রামের কয়েকজন ধান কাটার শ্রমিক মিলে বাড়ির সামনে গোলাঘাট হাওরে ধান কাটতে যান। ধান কাঁটার একপর্যায়ে হঠাৎ চারদিক অন্ধকার হয়ে প্রবল বাতাসের সঙ্গে বজ্রপাত হয়। এসময় ঘটনাস্থলেই রমজান আলী নামে এক কিশোর  অঙান হয়ে পড়েন এবং তার সঙ্গে থাকা চাচাতো ভাই মুকিত মিয়া গুরুতর আহত হন। পরে দুইজনকে সঙ্গে থাকা অপর লোকজন উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে এখানকার জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রমজান আলীকে মৃত্যু ঘোষণা করেন এবং আহত মুকিত মিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরন করেন। 


এ ব্যাপারে দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. ইউনুস মিয়া বলেন, সকালে গোলাঘাট হাওরে ধান কাটতে গিয়ে এক কিশোর বজ্রপাতে মারা গেছে এবং আহত হয়েছে অপর এক যুবক। আহত যুবককে চিকিৎসার জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। 


তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ ইফতেখার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ রয়েছে, আইনি প্রক্রিয়া চলছে। 
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুপ্রভাত চাকমা সবাইকে সাবধানে থাকার জন্য অনুরোধ জানান এবং উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মৃত ব্যক্তির আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ইআ-১০