প্রকাশিত: ২৮ এপ্রিল, ২০২৩ ১৬:৩৯ (মঙ্গলবার)
আনোয়ারুজ্জামানের সাথে এক মঞ্চে আ.লীগের মনোনয়নবঞ্চিতরা

 

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন ১০ নেতা। স্থানীয় নেতাদের হতাশ করে দলের মনোনয়ন বাগিয়ে নেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। এরপর থেকে মনোনয়নবঞ্চিতরা ভূগছিলেন মনোকষ্টে। মনোনয়ন ঘোষণার পর আনোয়ারুজ্জামান সিলেট ফিরলে বিমানবন্দরে যাননি বঞ্চিতরা। এরপর থেকে গুঞ্জন ছিল আনোয়ারুজ্জামানের পক্ষে আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিতরা মাঠে নামবেন কি-না? শেষ পর্যন্ত সকল গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) রাতে আনোয়ারুজ্জামানকে নিয়ে সভা করেছে মহানগর আওয়ামী লীগ। সেই সভায় মনোনয়নবঞ্চিত প্রায় সকল নেতা উপস্থিত ছিলেন। আগামী নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী ও প্রতীককে বিজয়ী করতে তারা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছেন।


আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর তালতলাস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে জরুরি সভা আহবান করে মহানগর আওয়ামী লীগ। ওই সভায় কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যদের সাথে উপস্থিত ছিলেন সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্য নেতাদের পাশাপাশি মনোনয়নবঞ্চিত নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সহ সভাপতি আসাদ উদ্দিন আহমদ, ফয়জুল আনোয়ার আলাওর, বীরমুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এটিএম হাসান জেবুল ও আজাদুর রহমান আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ছালেহ আহমদ সেলিম ও আরমান আহমদ শিপলু ও সদস্য প্রিন্স সদরুজ্জামান চৌধুরী। কেবলমাত্র সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন ছিলেন সভায় অনুপস্থিত। তিনি বর্তমানে সপরিবারে যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। তার অনুপস্থিতিতে সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এটিএম হাসান জেবুল।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে চলছে উন্নয়নের জোয়ার। সেই জোয়ারে সিলেট সিটি করপোরেশনও থাকার কথা। সেজন্য সরকার গত ১০  বছরে প্রচুর বরাদ্দ দিয়েছে। কিন্তু কাক্সিক্ষত উন্নয়নের ছিটেফোটাও লাগেনি এখানে। বরং বর্তমান মেয়রের নেতৃত্বে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম হয়েছে। দিনেদিনে জনদুর্ভোগ কেবল বেড়েই চলেছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। আওয়ামী লীগের প্রতিটি সদস্যকে একেকজন নৌকার মাঝি হিসাবে মাঠে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে। বিশেষ করে সিলেট মহানগরীর জলাবদ্ধতা, ড্রেনেজ সমস্যা, শহররক্ষা বাঁধ নির্মাণ, রাস্তাঘাট স¤প্রসারণসহ পরিকল্পিত নগরায়নের স্বার্থে এবং নাগরিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করতে হলে নগরভবনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব নিশ্চিত করা জরুরী। আর তা করতে হলে সবাইকে প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। জনগনের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইতে হবে।

 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/শাদিআচৌ/ নাজাত