প্রকাশিত: ০৫ মে, ২০২৩ ১৭:২৪ (রবিবার)
মা অন্তঃসত্ত্বা, মেনে নিতে পারেননি অভিনেত্রী পলক

সালমান খানের সিনেমা ‘কিসি কা ভাই কিসি কি জান’ দিয়ে সদ্য বড় পর্দায় পা রেখেছেন পলক তিওয়ারি। তার মা জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্বেতা তিওয়ারি। মেয়ে এবং ছেলেকে নিয়ে একা জীবন তার। কারণ, দুই দুইবার বিয়ে করে তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হয়েছিল তাকে।
 

প্রথম স্বামী রাজা চৌধুরী ও শ্বেতা তিওয়ারির একমাত্র কন্যা হলেন পলক। যখন তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়, সেই সময় পলকের বয়স ছিল ৯ বছর। ২০১৩ সালে অভিনব কোহলির সঙ্গে নতুন করে সংসার বাঁধেন অভিনেত্রী। একটি ছেলে হয় তাদের। সেই সময় পলকের বয়স প্রায় ১৫। দ্বিতীয়বার মা অন্তঃসত্ত্বা শুনে কী অনুভূতি হয়েছিল পলকের?
 

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে পলক জানান, মা যে অন্তঃসত্ত্বা তা প্রথমে তিনি মেনেই নিতে পারেননি। ক্রমাগত নিজেকে বলতেন, ‘না, এটা হতে পারে না।’ পলকের কথায়, ‘তখন আমার ১৫ বছর বয়স। মা এক দিন আমায় একথা বলেছিল। আমি খুবই বিরক্ত হয়েছিলাম। মা বলেছিল, তুমি কি জানো, আমার আরও একটা সন্তান আসতে চলেছে? আমি বলেছিলাম, ‘না! না! এমন হতে পারে না!’ বিষয়টা এমন, যেন মায়ের সঙ্গে আমার চুক্তি হয়েছিল। সেই চুক্তিভঙ্গ করেছে মা।’

মেয়ের এমন প্রতিক্রিয়া দেখে শ্বেতা পাল্টা পলককে জিজ্ঞেস করেন, ‘কী বলতে চাইছ তুমি?’ ইতস্তত পলক উত্তর দেন, ‘আসলে আমায় কেউ বলেনি যে তোমার আবার সন্তান হবে। আমি প্রস্তুত ছিলাম না। মা তখন আমায় বুঝিয়েছিলেন, এতটা প্রতিক্রিয়া দেওয়ার মতো কিছু হয়নি।’
 

প্রসঙ্গত, ভালোবেসে রাজা চৌধুরীকে বিয়ে করেছিলেন শ্বেতা তিওয়ারি। দীর্ঘ ৯ বছর সংসার করার পর ২০০৭ সালে সেই বিয়ে ভেঙে যায়। প্রথম বিয়ের পর মাত্র ২০ বছর বয়সেই মা হয়েছিলেন শ্বেতা। পরে তিন বছর ডেট করার পর ২০১৩ সালে অভিনব কোহলিকে বিয়ে করেন শ্বেতা। ২০১৬ সালে তাদের পুত্রসন্তান হয়, নাম রাখেন রেয়াংশ কোহলি। দাম্পত্য কলহের অভিযোগে শ্বেতার সেই বিয়েও ভেঙে যায়। আপাতত দুই ছেলেমেয়ের সিঙ্গল মাদার শ্বেতা।



 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/এসডি-৮৯