প্রকাশিত: ২৮ নভেম্বর, ২০২৩ ১৫:৩৬ (শুক্রবার)
এইচএসসির ফল বিপর্যয়ের দায় শিক্ষকদের দিচ্ছেন অভিভাবকরা

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে কলেজগুলোতে এবারের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে চরম বিপর্যয় ঘটেছে। রোববার প্রকাশিত ফলাফলে জানাগেছে, উপজেলার ১০টি কলেজে থেকে এক হাজার ৯০৬ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে এক হাজার ২৩৮ জন কৃতকার্য হয়েছেন। এরমধ্যে সৈয়দপুর আদর্শ কলেজ থেকে ১৫০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১২০ জন শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে।

 

উপজেলার সরকারী ডিগ্রী কলেজের ফলাফল বিপর্যয় হয়েছে। জগন্নাথপুর সরকারি কলেজ থেকে ৬৫৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়েছে ২৮৪ জন শিক্ষার্থী। শুধুমাত্র উপজেলার ১টি কলেজ শাহজালাল মহাবিদ্যালয় থেকে ৫টি জিপিএ ৫ এসেছে। ২৫১ জন পরিক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৩০ জন। এ কলেজে পাশের হার ৯১%।

কলেজ অধ্যক্ষ আব্দুল মতিন জানান, সুনামগঞ্জের সেরা ১০টি কলেজের মধ্যে আমাদের কলেজ স্থান পেয়েছে। আমাদের এখানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী দের নিয়মিত উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। উপজেলার কলেজ গুলোর মধ্যে মোট পাশের হার ৬৪ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

মাদ্রাসায় বোর্ডের অধীনে এ উপজেলার ৭টি মাদ্রাসা থেকে আলিম পরীক্ষায় অংশ নেন ৪০৩ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে অকৃতকার্য হয়েছে ২৭ জন। জিপিএ ৫ এসেছে দুটি। মোট পাসের হার ৯৩ দশমিক ৩০ শতাংশ।

উপজেলার সৈয়দ পুর ফাজিল মাদরাসায় ৮৫ জন পরিক্ষার্থীর মধ্য কৃতকার্য হয়েছেন ৭৯ জন। পাশের হার ৯৩%।
 
মাদরাসা অধ্যক্ষ মাওলনা সৈয়দ রেজওয়ান আহমদ বলেন, আমাদের এখানে নিয়মিত ক্লাস হয় এবং শিক্ষক ও শিক্ষার্থী দের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। এখানে ফাঁকিবাজীর কোন সুযোগ নেই।

এদিকে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে শিক্ষকদের গাফিলতি ও দায়িত্বহীনতার কারণে শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফল অর্জন করতে পারেনি বলে অভিযোগ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অভিভাবকদের। বিশেষ করে জগন্নাথপুর সরকারী ডিগ্রি কলেজে ফলাফল বিপর্যয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন এলাকার অভিভাবকগন।

অভিভাবকরা বলেন, এ সরকারী কলেজটিতে দীর্ঘ দিন ধরে ফ্রী স্টাইল দুর্নীতি চলছে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থী দের ফ্রী স্টাইল উপস্থিতি, শিক্ষক দের ক্লাস ফাঁকি, অধিকাংশ সময়ই ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অনুপস্থিতি নিয়মে পরিনত হয়েছে। সরকারী কলেজটিতে নিয়মিত ক্লাস না হওয়া ও বখাটেপনা সহ গুরুতর অভিযোগ রয়েছে।

 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/সানোয়ার/নাজাত