প্রকাশিত: ২২ এপ্রিল, ২০২৪ ১৬:০১ (শুক্রবার)
লন্ডনে জকিগঞ্জের ইতহাস নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত

সিলেটের ঐতিহ্যবাহি জনপদ জকিগঞ্জের ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে লন্ডনে প্রমাণ্যচিত্র প্রদর্শন করেছে জকিগঞ্জ এসোসিয়েসন ইউকে। প্রবাসে বেড়ে ওঠা প্রজন্মকে জনপদের কথআ জানাতে এবং ফেলে আসা দিনকে স্মরণ করতে এমন আয়োজন অবিস্মরণীয় বলে মন্তব্য করেছেন লন্ডনে বসবাসরত বাংলাদেশিরা।

রবিবার লন্ডনের এন্টারপ্রাইজ একাডেমীতে আয়োজিত সংগঠনের বার্ষিক সাধারণ সভা ও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী পূর্ব আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি কাউন্সিলর শেরওয়ার চৌধুরী।
 

সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেনের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ হাইকমিশন লন্ডনের ডেপুটি হাইকমিশনার হযরত আলী খান। এ সময় আর্থিক প্রতিবেদন পাঠ করেন সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ মুর্তজা চৌধুরী ইকবাল।
 

এ সময় দেশের প্রথম মুক্তাঞ্চল হিসেবে সিলেটের জকিগঞ্জকে সরকারি স্বীকৃতি প্রদানের দাবী জানিয়েছেন লন্ডন প্রবাসিরা। লন্ডনে জকিগঞ্জ এসোসিয়েসন ইউকে আয়োজিত উপজেলার ইতিহাস ঐতিহ্য বিষয়ক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনপূর্ব আলোচনা কালে এ দাবী জানান তারা।
 

এ সময় তারা আরো বলেন, ১৯৭১ সালের ২০ নভেম্বর ঈদের দিন রাতে মিত্র বাহিনীসহ এক সাঁড়াশি অভিযানে ২১ নভেম্বর ভোরে মুক্ত হয় সিলেটের সীমান্তবর্তী জনপদ জকিগঞ্জ। যুদ্ধকালীন সময়ে এই অঞ্চল ছিল ৪ নম্বর সেক্টরের অন্তর্ভক্ত। দেশের প্রথম মুক্তাঞ্চল হিসেবে সরকারি স্বীকৃতি সময়ের দাবী।
 

বিশেষ অতিথি ছিলেন- টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পিকার কাউন্সিলর জাহেদ চৌধুরী, নিউহাম কাউন্সিলের স্পিকার কাউন্সিলর রহিমা রহমান, ক্যামেডন কাউন্সিলের মেয়র কাউন্সিলর নাজমা  রহমান, সাবেক স্পীকার আহবাব হোসেন, ডেপুটি স্পিকার কাউন্সিলর  সাইফ উদ্দিন খালেদ, কাউন্সিলর ফয়জুর রহমান, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি নাহাস পাশা, কমিউনিটি নেতা মুহিবুর রহমান মুহিব, নিজামুল হক নাজমুল, শাহাব উদ্দিন, মুফতি আব্দুল মুনতাকিম, চ্যানেল এসের ফারহান মাসুদ খান, সংগঠনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার নুরুল গাফফার, ব্যারিস্টার মাসুদ আহমদ চৌধুরী, রফিকুল হায়দার, মুহিবুস সামাদ চৌধুরী মামুনসহ আরো অনেকে।
 

কুরআনে পাক থেকে তেলাওয়াত করেছেন জকিগঞ্জের কৃতি সন্তান দারুল উম্মা মসজিদের খতিব ও ইমাম শেখ কাজী আশিকুর রহমান এবং হাফিজ মওলানা জাকারিয়া।
 

এ সময় বক্তারা বলেন, আঞ্চলিক সংগঠন হিসেবে জকিগঞ্জ এসোসিয়েসন সর্বপ্রথম নিজ এলাকার যে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করালো তা অন্যান্য উপজেলাবাসিও অনুসরণ করবে। এতে শেকড়ের কথা জানবে নতুন প্রজন্ম।  সংগঠনকে থেকে জানানো হয়েছে বর্তমান সংস্করণে যে কমতি আছে আগামিতে যেসব সংস্করণ আসবে তা সংযোজন করা হবে। বহির্বিশ্বে আলোকিত জকিগঞ্জ প্রজন্ম নিয়ে পরবর্তী সংস্করণ প্রক্রিয়াধীন আছে বলে জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার ছিলো বায়ান্ন টিভি।


 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/লুৎফুর/এসডি-১৭৬৮