প্রকাশিত: ০৭ জুন, ২০২৪ ১৯:৪০ (বুধবার)
গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ঘরোয়া ওষুধের কথা জানালেন ডাক্তার তাসনিম জারা

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগেন না এমন মানুষ হাতেগোনা। যদিও এই রোগকে অনেকেই পাত্তা দিতে চান না। নিয়ম করে ওষুধ খান না। এই সমস্যাকে এড়িয়ে গেলে পরে নানা রকম রোগ দেখা দিতে পারে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলা হয়ে থাকে গ্যাস্ট্রো ইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ। তবে বেশ কিছু ঘরোয়া উপায়েই এই সমস্যার সমাধান করা যায়। সেই উপায় বাতলে দিলেন বাংলাদেশের চিকিৎসক তাসনিম জারা।
 

গ্যাস্ট্রিক কেন হয়?
গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে নানা কারণে। কিছু খেলেই তা জমা হয় পাকস্থলীতে। সেই খাবার হজম করার জন্য কিছু অ্যাসিড এবং অন্যান্য জিনিস তৈরি হয় পাকস্থলীতে। এই খাবার নামে শরীরের নিচের দিকে। কিন্তু, কোনও কারণে তা গলার দিকে উঠলেই বুকে জ্বালা শুরু হয়।
 

ডাক্তার তাসনিম জানান, অনিয়মিতভাবে খাবার খেলে গ্যাস্ট্রাইটিস বা পাকস্থলীতে ক্ষত এবং ইনফেকশন হয়ে নানা জটিলতা বাড়ায়। আমাদের খাদ্যাভ্যাস এবং দৈনন্দিন জীবনে সামান্য কিছু পরিবর্তন ঘটালেই এই সমস্যা ঘরোয়াভাবে অনেকটাই সমাধান করা যায়।
 

গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণ কী?
এই সমস্যা দেখা দেওয়ার আগে বেশ কিছু লক্ষণ দেখা দেখা দেয়। কারোর ওজন কোনও কারণ ছাড়াই হঠাৎ কমে গেলে, খাবার গিলতে অসুবিধা হলে, বারেবারে বমিবমি ভাব, পেটে চাপ ব্যাথা, রক্তশুন্যতা এ রোগের একটা লক্ষণ। তাসনিমের মতে, কারোর বারবার বুক জ্বালা করলে বা তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে এই সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
 

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার ঘরোয়া সমাধান
কিন্তু কিছু পদ্ধতি মানলে সাধারণ মানুষ এর থেকে সহজেই রেহাই পেতে পারেন বলেও জানিয়েছেন তাসনিম। তার মতে, খাবার খেতে হবে নিয়মিত এবং সময়ে। ঘুমাতে যাওয়ার তিন-চার ঘণ্টা আগে খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এক সঙ্গে বেশি খাবার না খেয়ে, সারাদিনে অল্প অল্প করে খেতে বলে জানান তিনি।
 

তাসনিম বলেন, ‘অনেকেই মনে করেন এই রোগ হলে মশলাযুক্ত সব খাবার বাদ দিয়ে শুধুমাত্র সেদ্ধ খাবার খেতে হবে। কিন্তু তা না করে, কোন খাবার থেকে এই সমস্যা হচ্ছে তা বুঝে নিয়ে সেটা খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিতে হবে।’ এরই সঙ্গে টেনশন এবং ওজন কমানোর সঙ্গে ধুমপান বাদ দেওয়ার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।
 

তার মতে, ঘুমানোর সময়ে মাথা এবং বুক যেন বিছানা থেকে অন্তত ১০ সেন্টিমিটার ওপরে থাকে। এই কারণে বিছানার যেদিকে মাথা রেখে ঘুমানো হবে সেদিকটা একটু উঁচু রাখার পরামর্শও দিয়েছেন তাসনিম। এতে বুক জ্বালা অনেকটাই কমবে।



 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/এসডি-৫১৫৮