হবিগঞ্জে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফল সংশোধন করা হলেও পরীক্ষায় অংশ না নিয়েই ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পাওয়ার ফলাফল বহাল রয়েছে। বিভিন্ন স্কুলে পূর্বের ফলাফলে বৃত্তি পেয়ে আনন্দ উল্লাস ও মিষ্টি বিতরণের পর নতুন ফলাফলে নাম বাদ পড়েছে অনেকের। এ ছাড়াও নাম ও রোল নম্বর বিভ্রান্তিও রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরের টাউন মডেল সরকারি বালক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বৃত্তি পরীক্ষার্থী ইসমাইল হোসেনের রোল নম্বর ১০৭২। তবে সে বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেনি। কিন্তু বৃত্তি পরীক্ষার সংশোধনী ফলাফল বিবরণীতে দেখা যায় ইসমাইল ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে। ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক সামছুন্নাহার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।



টাউন মডেল বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা জিনিয়া আক্তার বলেন, তার মেয়ে খায়রুন জান্নাত বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়। তার রোল নম্বর ছিল ৭২। ফলাফলে তার নাম আসলেও রোল নম্বর প্রদর্শন করা হয় ৭৩। ৭৩ রোল নম্বরের ছাত্রী হল লোপা রানী দাশ। এ ধরনের নাম ও রোল নম্বর নিয়ে আরো বিভ্রান্তি আছে বলে তিনি জানান।


এদিকে, মঙ্গলবার প্রকাশিত ফলাফলে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থী বৃত্তি পায়। এ নিয়ে আনন্দ উল্লাস এবং মিষ্টি বিতরণ করেন। পরে তারা জানতে পারেন ফলাফল স্থগিত হয়েছে। বুধবার রাতে নতুন করে ফলাফল ঘোষণা করা হলে ওই চারজনের কেউই বৃত্তি পায়নি।


এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মওলা বলেন, নতুন করে তালিকা প্রকাশ করার পর ত্রুটি থাকার কথা নয়। তারপরও বিষয়টি আমরা দেখছি।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ইআ-০৩