ঘরটি নিছক রড-সিমেন্ট-বালির নয়, তাদের আনন্দাশ্রু যেন চিৎকার করে বলছে- ঘরগুলো স্বর্ণের। নিজের ঘরের চাবি পেয়ে তাদের চোখে জল, আবেগে বুজে আসা কণ্ঠ। যে কথা কোনোদিন স্বপ্নেও ভাবেননি, সেই স্বপ্ন আজ চাবি আকারে হাতের মুঠোয় বন্দী। তারা এখন নিজের ঘরের বাসিন্দা।

সিলেট জেলায় তৃতীয় ধাপের অবশিষ্ট ও চতুর্থ ধাপে বুধবার (২২ মার্চ) ভূমি ও গৃহহীন ৬শ’ ৬টি পরিবারকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দেওয়া হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দিরগাঁও ইউনিয়নের নওয়াগাঁও আশ্রয়ণে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন উপহারদাতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 


এসময় তিনি নওয়াগাঁও আশ্রয়ণে আশ্রয় পাওয়া উপকারভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।
 
নওয়াগাঁয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিলেট জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি। 

জানা যায়, বুধবার তৃতীয় ধাপের অবশিষ্ট ও চতুর্থ ধাপে সিলেট জেলায় ভূমি ও গৃহহীন ৬শ’ ৬টি পরিবারকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর উপহার দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে জেলার বালাগঞ্জে ১০২, বিয়ানীবাজারে ৪৫, বিশ্বনাথে ৪৩, কোম্পানীগঞ্জে ৩৫, ফেঞ্চুগঞ্জে ১২, গোলাপগঞ্জে ৩২, গোয়াইনঘাটে ১৭০, জৈন্তাপুরে ৩২, কানাইঘাটে ১৮, সিলেট সদরে ৪৪, জকিগঞ্জে ৫৬ ও দক্ষিণ সুরমায় ১৭টি ঘর উপহার দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাওয়ায় ইতোমধ্যে সিলেটের ৪টি জেলায় আর কেউ নেই গৃহহীন। উপজেলাগুলো হচ্ছে- ফেঞ্চুগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা, কানাইঘাট ও জৈন্তাপুর। বুধবার সিলেটের এই চার উপজেলাকে ‘ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত’ ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী।

নওয়াগাঁয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান (বিপিএম-বার, পিপিএম-সেবা), সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত শফিকুর রহমান চৌধুরী ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন।


সিলেটভিউ২৪ডটকম / ডালিম