বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে চায় বলে উল্লেখ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী দলকে প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা এখন আর বিএনপি-জামায়াতের মতো দুর্নীতিবাজ দলকে সমর্থন করে না। বুধবার (১২ এপ্রিল) দুপুরে ডেমরা চৌরাস্তায় এক ইফতার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।
 

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বিএনপি-জামায়াত এখনও বাংলাদেশের মানুষের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কথা ভাবতে পারে না। মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে ও দুঃখ দূর করার মতো কোনো কাজ তারা করে না। রাজনীতি হলো দেশের জন্য, দেশের মুক্তি ও মর্যাদার জন্য। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের মর্যাদা বৃদ্ধি করার জন্য হলো রাজনীতি, যা বিএনপি করতে পারে না। দেশের প্রতি তাদের কোনো আস্থা নেই। দেশের মানুষ এসব অপকর্মের জন্য তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও লুটপাটের জন্য দেশের মানুষ তাদের ঘৃণা করে। এরা অগ্নি সন্ত্রাস করে দেশের মানুষকে হত্যা করে।


আগামী নির্বাচনে ভোটের মাঠে বিএনপিকে উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, হাওয়া ভবনের কর্ণধার, সন্ত্রাসীদের গডফাদার তারেক রহমান আজকে দেশের বাইরে বসে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। আর বিএনপি নেতারা দেশে বসেই বিদেশিদের কাছে ধরনা দেন। তারা বিদেশিদের কাছে মিথ্যা কথা বলে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। দেশের মূল্যবোধকে ধ্বংস করার জন্য ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নষ্ট করার জন্য সব চেষ্টাই করছেন তারা। তাদের এই ব্যর্থ রাজনীতি আমাদের প্রতিহত করতে হবে। তারপরও আওয়ামী লীগ আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য সব দলকে আহ্বান জানায়।
 

তিনি বলেন, বিএনপি মানুষের লাশ নিয়ে স্বার্থের রাজনীতি করে। মানুষকে জিম্মি করে, ভয় দেখিয়ে, পুড়িয়ে তারা যে আন্দোলন করে এটা আন্দোলন-সংগ্রামের পথ নয়। জাতির পিতা আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন মানুষকে সঙ্গে নিয়ে ও মানুষের শক্তিতে বলিয়ান হয়ে। জাতির পিতা সুযোগ্য সন্তান শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব নিয়ে পথে-প্রান্তরে, গ্রামে, সর্বত্র ঘুরে বেড়িয়েছেন। মানুষের কাছে গিয়েছেন। তিনি মানুষকে ভোটের অধিকারের কথা এবং মুক্তি ও গণতন্ত্রের কথা বলেছেন। দেশের মানুষ শেখ হাসিনার ওপর আস্থা রেখেছে। বাংলার মাটিতে জাতির পিতার খুনিদের বিচার হয়েছে। আর যাতে কোনো অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরতান্ত্রিক শক্তি দেশের গণতন্ত্রের ওপর আঘাত আনতে না পারে, তার জন্য দেশের ১৭ কোটি মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, জাতির পিতা সারা জীবন মানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই সংগ্রাম করেছেন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়ে আমাদের এই অঞ্চলকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে উপহার দিয়েছেন।

বিশ্ব অর্থনৈতিক অবস্থার প্রসঙ্গে টেনে তিনি বলেন, সারা বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা চলছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একের পর এক ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তান দেউলিয়া হয়ে গেছে। বিশ্বের অনেক উন্নত দেশ আজ অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে আমাদের নেত্রীর সুদক্ষ পরিচালনায় যথেষ্ট ভালো আছি।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, আমরা অনেকটাই অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে উঠেছি। আমাদের এই সংকট কাটিয়ে উঠার পরও রমজানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মানুষের কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী কোনো ইফতারির আয়োজন করেনি। বাংলাদেশের ৫২ বছরের ইতিহাসে কোনো রাজনৈতিক দল রমজানে আন্দোলন-সংগ্রাম বা কোনো কর্মসূচি গ্রহণ করেনি। অতীতে কোনো বিরোধীদল এমন কর্মসূচি নেয়নি।


তিনি আরও বলেন, আমরা যখন বিরোধীদলে ছিলাম তখন আমাদের ওপর এত অত্যাচার হওয়ার পরও আমরা রমজানে কর্মসূচি দেই নাই। কারণ যাতে রমজানে মানুষ একটু ভালো থাকে। রমজানের পবিত্রতা রক্ষা হয়। অথচ বিএনপি রমজানে রাস্তাঘাট বন্ধ করে কর্মসূচির নামে মানুষকে কষ্ট দিচ্ছে। তারা সরকার উৎখাতের জন্য নানা উস্কানিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে।

ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল আমিন রুহুল ও সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির।


আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সরফুদ্দিন আহমেদ সেন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন মহি, মিরাজ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন প্রমুখ।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/পল্লব-১১