সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র প্রার্থী হাফিজ মাওলানা মাহমুদুল হাসান (এলএলবি)।
 

বৃহস্পতিবার (১৩ এপ্রিল) বেলা আড়াইটায় জেলা প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে মতবিনিময়কালে তিনি সাংবাদিকসহ সবার সহযোগিতায় দুর্নীতিমুক্ত সিলেট সিটি গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
 


মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘সিলেটের মানুষ যদি আমাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করেন তবে সবার সহযোগিতায় এই শহর থেকে দুর্নীতির মূলোৎপাটন করবো ইনশা আল্লাহ। পাশাপাশি মানবিক বিবেচনায় রিকশা-ভ্যানের ট্যাক্স মওকুফ, বর্ধিত ওয়ার্ডগুলোতে পুরনো ওয়ার্ডগুলোর সমান নাগরিক সেবা পৌঁছানো, নতুন ওয়ার্ডগুলোতে এক বছরের হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ, পুরো মহানগরে পানির বিল কমানো, ব্যবসায়ী বাড়ানোর লক্ষ্যে কম ফি-তে ট্রেড লাইসেন্স প্রদান, ভবন নির্মাণ ফি কমানো, নগরের বস্তিগুলোর উন্নয়ন ও এসবের বাসিন্দাদের মূল জীবনধারায় নিয়ে আসা, প্রবাসীদের জন্য সেল গঠন, যুবক ও নারীদের (পৃথক) অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কর্মংসংস্থানের ব্যবস্থা, এলাকাভিত্তিক খেলার মাঠ, জলাবদ্ধতা নিরসন, কিশোর গ্যাং দমন, মাদক নির্মূল, সরকারি অনুদান যথাযথভাবে বন্টন, পথশিশু ও ভিক্ষুকমুক্ত নগর গড়া, পরিকল্পিতভাবে রাস্তাঘাটের উন্নয়ন এবং অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে নগরের যানজট নিরসনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

অতীতের মেয়ররা যা করতে পারেননি তা করার চেষ্টা করবেন উল্লেখ করে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী আরও বলেন, তাদের দলটি ইসলাম, দেশ, মানবতা ও দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় রাজনীতি করে। সিলেট সিটিতে ইসলামী আন্দোলনের মেয়র নির্বাচিত হলে প্রকৃত অর্থেই সিলেটকে একটি আন্তর্জাতিক মানের স্মার্ট ও মডেল সিটি হিসেবে গড়ে তোলা হবে।
 

সুষ্ঠুভাবে নাগরিকদের ভোটাধিকার প্রয়োগের স্বার্থে মাহমুদুল হাসান সিটি নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত থেকে নির্বাচন কমিশনকে সরে আসার আহবান জানান।

তিনি বলেন, ইভিএমে ভোটাররা এখনও অভ্যস্ত হয়ে উঠেননি। ব্যালটে যেখানে আধা মিনিটে একজন ভোটার ভোট দিতে পারেন ইভিএমে সেখানে লাগে ৪ থেকে ৫ মিনিট। তাছাড়া ভোট চলাকালীন ভোটারের আঙ্গুলের ছাপ না মেলাসহ বিভিন্ন সময় মেশিনগুলো নষ্ট হয়ে যায়। সবমিলিয়ে ইভিএমে ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসাই উচিৎ নির্বাচন কমিশনের।
 

ইসলামী আন্দোলন সিলেটে বিভিন্ন দুর্যোগকালে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে উল্লেখ করে মাওলানা মাহমুদুল হাসান বলেন, মানুষ ইসলামী আন্দোলনের প্রতি দিন দিন আগ্রহী ও কৌতহলি হচ্ছেন। এর জ¦লন্ত উদাহরণ সদ্য সমাপ্ত রংপুর সিটি নির্বাচন। ওই সিটিতে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী অর্ধ লক্ষাধিক ভোট পেয়ে নির্বাচনে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন। মানুষ অতীতে দেখেছেন- কোন রাজনৈতিক দল কী করেছে। মানুষ এখন দুর্নীতিমুক্ত জনবান্ধব জনপ্রতিনিধি চান। তাই আমরা আশাবাদী- নগরবাসী চান একজন দুর্নীতমুক্ত মেয়র।
 

মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র প্রার্থী হাফিজ মাওলানা মাহমুদুল হাসান।
 

মতবিনিময়ের সময় উপস্থিত ছিলেন- ইসলামী আন্দোলন সিলেট মহানগর সভাপতি মুফতি সাঈদ আহমদ, সহ-সভাপতি ও মিডিয়া উপ-কমিটির আহবায়ক ডা. রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, সিলেট জেলা কমিটির সহসভাপতি ফজলুল হক, সাধারণ সম্পাদক হাফিজ মাওলানা ইমাদ উদ্দিন, মহানগরের যুগ্ম-সম্পাদক হাফিজ মাওলানা আব্দুস শহিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজ মাওলানা মতিউর রহমান খান, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন সিলেট মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মো. সিদ্দিকুর রহমান, ইসলামী যুব আন্দোলন সিলেট মহানগরের সাধারণ সম্পাদক রায়হান বিন আজমল, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন সিলেট মহানগরের সভাপতি মো. মকবুল হোসাইন, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন সিলেট মহানগরের সহপ্রচার সম্পাদক মো. আল-আমিন, ইসলামী যুব আন্দোলন সিলেট মহানগরের দাওয়াহ ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মো. মাসরুর দাঈয়ান।

 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/প্রেবি/এসডি-০৮