করোনার প্রকোপ কাটিয়ে আগামী বছরের (২০২২) ৩১ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে চলেছে আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা। তা চলবে আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। পশ্চিমবঙ্গের সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্ক ময়দানে হবে ৪৫ তম এই বইমেলা।

বাংলাদেশর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী-কে সামনে রেখেই এবারের কলকাতা বইমেলার থিম কান্ট্রি বাংলাদেশ। এছাড়াও ভারতের অন্যতম স্বাধীনতা সংগ্রামী নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মজয়ন্তী ও বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক সত্যজিত রায়ের জন্ম শতবর্ষ ও ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছরকেও স্মরণ করা হবে এবারের বইমেলায়।

সাম্প্রতিককালে বহু গুণীজন ব্যক্তি- সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি, অভিনেতা সৌমিত্র চ্যটার্জি, শঙ্খ ঘোষ, বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত, সাংবাদিক অঞ্জন বন্দোপাধ্যায়, বুদ্ধদেব গুহ, বাংলাদেশের জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, সাহিত্যিক দেবেশ রায়, লেখক, সাংবাদিক নিমাই ভট্টাচার্য, কবি ও প্রাবন্ধিক অলোক রঞ্জন দাশগুপ্ত সহ অনেকেই প্রয়াত হয়েছেন। আগামী বইমেলায় এইসব প্রয়াত গুণিজনদের শ্রদ্ধার্ঘ্য জানানো হবে বলে জানান ত্রিদিব।

সেক্ষেত্রে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনেই বইমেলার আয়োজন করা হবে। সেক্ষেত্রে যতটা সম্ভব খোলা-মেলা থাকবে বইমেলা প্রাঙ্গন। ফেস মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সেইসাথে স্যানিটেশন ও ডবল ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট’এর ওপর জোর দেওয়া হবে।

এই কথা জানিয়েছেন কলকাতা বইমেলার আয়োজক সংস্থা ‘কলকাতা বুক সেলার্স আ্যন্ড গিল্ড’ এর সভাপতি ত্রিদিব চ্যাটার্জি। কলকাতা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ত্রিদিব চ্যাটার্জি একথা জানিয়ে বলেন, ‘এই বইমেলায় যাতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে উপস্থিত থাকেন সে ব্যাপারে আমরা সমস্ত প্রোটোকল মেনে চিঠি পাঠিয়েছি। আগামী ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশ সফরে গিয়ে বিষয়টিতে আরও গতি আনার চেষ্টা করা হবে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের তরফেও শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

বাংলাদেশের বিশাল মাপের প্যাভিলিয়ন ছাড়াও বিশ্বের আরও কিছু দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে সেইসাথে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের প্রকাশনা সংস্থাগুলিও অংশ নেবে, থাকছে লিটন ম্যাগাজিনের স্টলও।

আন্তর্জাতিক বইমেলার বিশেষ আকর্ষণ অষ্টম কলকাতা লিটারেচার ফেস্টিভ্যাল এবারেও বইমেলা চলাকালীন অনুষ্ঠিত হবে।  

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে