শীতের কুয়াশায় ঢেকে নেওয়া ফসলের মাঠে, উড়ে যাওয়া বকের পাখায়; মৃদু হেলে যাওয়া ধানগাছ আর পাতা ঝরে যাওয়া গাছে, বৃষ্টির আবাহন চায় গাছের সুনিপুণ ডালপালা। আমবাগানে আমের বউল যেনো মৌমাছির নিজস্ব মধুত্বের পান্থ শালা, অদ্ভুত গুঞ্জনে মুখরিত চারপাশ বসন্ত পঞ্চমীর আগাম বন্দনা।
 

মিষ্টি রোদে ছেলেবেলার কলরব, এক্কাদোক্কার স্মৃতিচারণ, সব মিলিয়ে সরস্বতী পূজার সর্বময় আনন্দ আর আয়োজনের অন্তিমপর্বে সজ্জিত হচ্ছে প্রতিমা ও মণ্ডপ।


হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম আরেকটি উৎসব হলো সরস্বতী পূজা। এই উৎসবে পঞ্চমী তিথিতে বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতীর চরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন অগণিত ভক্ত। অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করতে কল্যাণময়ী দেবীর চরণে প্রণতি জানান তাঁরা। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মতে দেবী সরস্বতী সত্য, ন্যায় ও জ্ঞানালোকের প্রতীক। বিদ্যা, বাণী ও সুরের অধিষ্ঠাত্রী।

সেই সাথে ‘সরস্বতী মহাভাগে বিদ্যে কমললোচনে/বিশ্বরূপে বিশালাক্ষী বিদ্যংদেহী নমোহস্তুতে’ সনাতন ধর্মাবলম্বীরা এই মন্ত্র উচ্চারণ করে বিদ্যা ও জ্ঞান অর্জনের জন্য দেবী সরস্বতীর অর্চনা করবেন।

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে হিন্দু সম্প্রদায় বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার বাণী অর্চনাসহ নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে সিলেটসহ সারা দেশের মন্দির ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে। পূজা ছাড়াও অন্য অনুষ্ঠানমালায় আছে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি, আলোকসজ্জা প্রভৃতি আয়োজন করা হয়েছে। 
 

১১ মাঘ- ২৬ জানুয়ারি- বৃহস্পতিবার সকাল ৬টায় প্রতিমা স্থাপন ও দেবীর অর্চনা শুরু হবে এবং ১০টা থেকে শুরু হবে অঞ্জলি প্রদান। সন্ধ্যা ৭টায় হবে আরতি অনুষ্ঠান।


মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদ এর সভাপতি রজত কান্তি গুপ্ত সিলেটভিউ-কে জানিয়েছেন- সিলেট মহানগরীর ভিতরে বিভিন্ন বাসা বাড়ি বা স্কুল কলেজ মিলিয়ে পূজা হচ্ছে প্রায় ৮ শত।

নিরাপত্তার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন- প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার জোরদার করা হয়েছে। যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে তারা সর্বদা সজাগ থাকবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

রজত কান্তি আরো বলেন, প্রতিমা শোভাযাত্রা শুক্রবার সাড়ে ৮ টায় হবে, এতে প্রায় ২০০ প্রতিমা যুক্ত হবে।
 

সিলেটভিউ২৪ডটকম/পল্লব-১