ছবি: সংগৃহিত।

গেল মঙ্গলবার সৌদি আরবে গেছেন লিওনেল মেসির বাবা হোর্হে মেসি।

হোর্হে সৌদি আরবে কেন গেছেন, এ নিয়ে চলছে নানামুখী আলোচনা। হোর্হে মেসি বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টাইন তারকার এজেন্ট হিসেবেও কাজ করেন। পিএসজির সঙ্গে মেসির নতুন চুক্তির আলোচনা আটকে আছে বেশ কিছুদিন ধরেই। এর মধ্যেই হোর্হে মেসির সৌদি আরব ভ্রমণ গুঞ্জনের ডালপালা মেলছে।


মেসি কি তবে সৌদি আরবে যাচ্ছেন? গত জানুয়ারিতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো সৌদি আরবের ক্লাব আল নাসরে যোগ দিয়েছেন। দুই বছর মেয়াদে পর্তুগিজ তারকা যে টাকা পারিশ্রমিক হিসেবে পাচ্ছেন, সেটি মেসি-এমবাপ্পেদের তুলনায় কয়েক গুণ বেশি।

বাহরাইনের দ্য ডেইলি ট্রিবিউন জানাচ্ছে, মেসিকেও নাকি সৌদি আরবে রোনালদোর সমপরিমাণ অর্থ প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সৌদি আরবের আরেক শীর্ষ ক্লাব আল হিলাল মেসিকে এই অঙ্কের প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

২০২১ সালে বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে যোগ দিয়েছিলেন মেসি। প্রথম মৌসুমটা মোটামুটি কাটার পর এ মৌসুমে পিএসজির জার্সিতে বেশ ভালো করছেন আর্জেন্টাইন তারকা। মৌসুমের মাঝখানেই দেশকে জিতিয়েছেন বিশ্বকাপ। এখন পর্যন্ত ১৮টি গোল করেছেন। গোলে অবদান রেখেছেন ১৯ বার।

বিশ্বকাপের পরপরই পিএসজির সঙ্গে নতুন চুক্তি করে ফেলার কথা ছিল। কিন্তু সেই আলোচনা আপাতত স্থগিত আছে। এ ব্যাপারে দুই দিকের সমস্যার কথাই শোনা যাচ্ছে। পিএসজি এমনিতেই উয়েফার আর্থিক সংগতি নীতি ভঙ্গের কারণে শাস্তির মুখে আছে। মেসির সঙ্গে নতুন চুক্তিতে নতুন করে শাস্তির মুখে পড়তে হতে পারে ফরাসি ক্লাবটিকে।

মেসির সঙ্গে তারা আলোচনা স্থগিত রেখেছে এটি এড়াতেই। মেসি নিজেও নাকি পিএসজির পরিকল্পনা অতিমাত্রায় এমবাপ্পেকেন্দ্রিক হওয়া নিয়ে বিরক্ত। আলোচনাটা স্থগিত হওয়ার কারণ হিসেবে অনেকেই এটিকে সামনে আনছেন।

এদিকে স্প্যানিশ পত্রিকা মার্কা জানিয়েছে, মেসির বাবার সৌদি অভিযান মূলত সৌদি আরবের পর্যটন বোর্ডের আমন্ত্রণেই। মেসি আগেই সৌদি পর্যটন বোর্ডের দূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। এই কাজের মধ্যেই আল হিলালের সঙ্গে মেসির সম্ভাব্য চুক্তি নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলেই জানা গেছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে