দেশে এখন কোনো বিষয় নিয়ে কথা বললেই মামলা দেওয়া হচ্ছে। এই মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম হু হু করে বাড়ছে। দুর্নীতি কমছে না। দু–চার হাজার কোটি টাকা পাচারও এখন ছোট ঘটনা। কিন্তু কথা বললেই মামলা দেওয়া হচ্ছে।

 


আজ রোববার রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে মতবিনিময় সভার স্বাগত বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। কুমিল্লা ও ফরিদপুর বিভাগের ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) দলীয় সমর্থক সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানদের সঙ্গে আজ মতবিনিময় করছে বিএনপি।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘দেশ কঠিন সময় পার করছে। সরকার ২০১৪ ও ২০১৮ সালে প্রহসনের নির্বাচন করেছে। একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার ষড়যন্ত্র চলছে।’ সরকারবিরোধী যুগপৎ আন্দোলনের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে এ মতবিনিময় করা হচ্ছে বলে বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন।

মতবিনিময় সভায় প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘গত আগস্টে আন্দোলন শুরু হয়েছে। এই আন্দোলনে জনগণ কীভাবে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে, কীভাবে জনগণের অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে এই সরকারকে সরানো যায়, সে বিষয়ে আপনারা সুনির্দিষ্ট পরামর্শ দেবেন। সেই লক্ষ্যেই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আপনাদের এখানে আহ্বান করেছেন।’


মতবিনিময় কর্মসূচিতে ২০০১ সাল থেকে এ পর্যন্ত নির্বাচিত বিএনপির সমর্থক সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সেলিমা রহমানসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কেন্দ্রীয় নেতা এবং জেলার শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান লন্ডন থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চ্যুয়ালি মতবিনিময় সভায় যোগ দেন।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ইউনিয়ন পরিষদের দলীয় সমর্থক সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানদের সঙ্গে মতবিনিময় করছে বিএনপি। ১৬ মার্চ পর্যন্ত ১০টি মতবিনিময় সভা হবে। এসব মতবিনিময় সভায় সংশ্লিষ্ট বিভাগের বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা (রাজনৈতিক), যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক, জেলা সভাপতি অথবা আহ্বায়ক, ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক ও সদস্যসচিব উপস্থিত থাকছেন।

বিএনপির সূত্র জানায়, পরবর্তী মতবিনিময় সভা হবে ১৩ মার্চ চট্টগ্রাম বিভাগ, ১৫ মার্চ রাজশাহী ও ১৬ মার্চ ময়মনসিংহ বিভাগ।
 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/ডেস্ক/পল্লব-৫