মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বিটিএ) সিলেট জেলার শাখার উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।
 

সোমবার (১৩ মার্চ) সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন শেষে বিক্ষোভ মিছিল সহকারে জেলা প্রশাসক সিলেটের কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।
 


সিলেট জেলা শিক্ষক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি বেলাল আহমদের সভাপতিত্বে ও শিক্ষক নেতা সাইফুল ইসলাম রানা ও মো. রেজাউল ইসলাম এর যৌথ পরিচালনায় মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন- বিটিএ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক ও সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালিক রাজু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গোলাম মোস্তফা কামাল, সিলেট জেলা শিক্ষক সমিতির সমাজ কল্যাণ সম্পাদক, আহমেদ উল কবির, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সভাপতি মোহাম্মদ  আব্দুস সালাম, জকিগঞ্জ উপজেলার সহ-সভাপতি  সাব্বির আহমদ, বিশ্বনাথ উপজেলা শিক্ষক নেতা ফখর উদ্দিন, কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা শিক্ষক নেতা আনোয়ার হোসেন, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সাধারণ সম্পাদক  গোলাম মোস্তফা, জকিগঞ্জ উপজেলার সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ আহমদ খানসহ সিলেট জেলার ও  উপজেলার শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।
 

সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের মাধ্যমিক শিক্ষার প্রায় ৯৫% পরিচালিত হয় বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের মাধ্যমে  কিন্তু পরিতাপের বিষয় একই কারিকুলামের অধীন একই সিলোবাস, একাডেমি সময়সূচিতে বিনিয়োজিত থেকেও আর্থিক সুবিধার ক্ষেত্রে সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের মধ্যে রয়েছে পাহাড় সম বৈষম্য। এমপিও ভুক্ত শিক্ষকগণ মাত্র ২৫% উৎসব ভাতা, ১০০০টাকা বাড়িভাড়া এবং ৫০০টাকা চিকিৎসা ভাতা পান। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের বেতন স্কেল সরকারি প্রধানদের বেতন স্কেলের একধাপ নিচে প্রদান করা হয়। তাছাড়া সহকারী প্রধান শিক্ষকদের উচ্চতর স্কেল প্রদান না করার ফলে উচ্চতর স্কেল প্রাপ্ত সিনিয়র শিক্ষকদের বেতন স্কেল সহকারী প্রধান শিক্ষকদের বেতন স্কেলের সমান হওয়ায় সহকারী প্রধান শিক্ষকদের মধ্যেও অসন্তোষ বিরাজ করছে। এসকল বৈষম্য দূরীকরণের একমাত্র উপায় হচ্ছে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ।
 

সেলক্ষ্যে আগামী ১৪ মার্চ মঙ্গলবার দুই ঘন্টার কর্মবিরতি এবং ২০ মার্চ সোমবার ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহাসমাবেশ সফল করার আহবান জানান।
 

বক্তারা আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে একটি যুদ্ধ বিধস্ত দেশে প্রায় ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করেছিলেন এবং মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের জন্য সময় চেয়েছিলেন। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় ২৬ হাজার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেছেন। গুণগত শিক্ষা ও নতুন কারিকুলামে বাস্তবায়ন এবং স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য অবিলম্বে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ জরুরি।
 

মানবন্ধন শেষে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ সিলেটের অতিরিক্ত প্রশাসক মোবারক হোসেন এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে দাবী সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করেন।
 


সিলেটভিউ২৪ডটকম/প্রেবি/এসডি-০৭